নিউজপোল ডেস্ক: ২০১৭ সালে নিয়মশৃঙ্খলার অভাব থাকার কারণ দেখিয়ে বরখাস্ত করা হয়েছিল ভারতীয় সেনাবাহিনী থেকে। কিন্তু বরখাস্ত হওয়া জওয়ান তেজবাহাদুর যাদব বিশ্বাস করেন, সেনাবাহিনীকে নিম্নমানের খাবার সরবরাহ করা নিয়ে সোশ্যাল সাইটে তিনি যে সোচ্চার হয়েছিলেন, তার জেরেই অপসারণ ঘটে তাঁর। আদালতে এই অপসারণকে বেআইনি বলে এর আগেই মামলা করেছেন তিনি। নির্বাচনের আগে সংবাদমাধ্যমের সামনে তুলে ধরলেন তাঁর দ্বিতীয় পদক্ষেপ।
হরিয়ানার রেওয়াড়ি অঞ্চলের বাসিন্দা তেজবাহাদুর আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে নির্দল প্রার্থী হিসেবে লড়বেন বারাণসী নির্বাচন কেন্দ্র থেকে। প্রতিপক্ষে অন্য কেউ নন, রয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী স্বয়ং। কিন্তু তাই নিয়ে বিন্দুমাত্র চিন্তিত নন সেনাবাহিনীর প্রাক্তন জওয়ান। বেশ কয়েকটি দলের হয়ে ভোটে দাঁড়ানোর প্রস্তাব ছিল তাঁর কাছে। কিন্তু শেষপর্যন্ত স্বাধীনভাবে নির্দল প্রার্থী হিসেবেই নির্বাচন লড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, জানালেন যাদব।
তাঁর উদ্দেশ্য ভোটে জেতা নয়। তেজবাহাদুর চান সামরিক এবং বিশেষত আধা সামরিক বাহিনীর প্রতি সরকারের বৈরী মনোভাবকে প্রকাশ্যে আনতে। তাঁর তোলা অভিযোগ সরকার খতিয়েও দেখতে চায়নি। উল্টে বরখাস্ত করে তাঁর মুখ বন্ধ করতে চেয়েছিল। এর থেকেই প্রমাণিত যে এই দুর্নীতি সরকারের অনেক গভীরে নিহিত রয়েছে। নরেন্দ্র মোদী জওয়ানদের নামে ভোট চাইছেন দেশবাসীর কাছে, অথচ পুলওয়ামায় নিহত আধা সামরিক জওয়ানদের শহিদের মর্যাদা পর্যন্ত দেওয়া হয়নি— ক্ষোভ তেজবাহাদুরের। খুব শিগগিরই বারাণসী গিয়ে নির্বাচনী প্রচার শুধু করবেন তেজবাহাদুর। কৃষক এবং অবসরপ্রাপ্ত আধা সামরিক কর্মচারীদের সাহায্যে প্রচার করবেন বলে জানিয়েছেন তিনি। সর্বাধিক ভোটারদের কাছে নিজেদের বার্তা পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যেই পরিকল্পনা করছেন তাঁরা।