নিউজপোল ডেস্ক: নির্বাচনের আগে প্রেক্ষাগৃহে নরেন্দ্র মোদীর বায়োপিকের মুক্তি হবে না, এতে ভোটারদের ওপর প্রভাব পড়তে পারে। প্রথম দফার ভোট পর্ব না মিটলে দেশের মানুষ দেখতে পাবে না এই ছবি। এমনটাই বলেছিল ভারতের নির্বাচন কমিশন। কিন্তু তাতে বিশেষ কিছু লাভ হল না। কারণ মোদীর বায়োপিক এবার দেখা যাবে অনলাইনে। ওয়েব সিরিজ আকারে, জানাল নির্মাতা এরোস নাও। শুক্রবার কথা ছিল ছবির মুক্তির। কিন্তু মুক্তি পিছিয়ে গেল এক সপ্তাহ। নির্বাচন কমিশনের নির্দেশে ‘পিএম নরেন্দ্র মোদীর’ মুক্তি স্থগিত হয়েছে গতকাল। স্থগিতাদেশ নিয়ে মুখ খোলেননি ছবির নির্মাতারা। আজ বড় পর্দার পরিবর্তে বায়োপিক নিয়ে তৈরি ওয়েব সিরিজটির পাঁচটি এপিসোড মুক্তি পেল। অম্বুশ মার্কেটিংয়ের সহায়তায়। গোটা ছবিটি ১০টা এপিসোডে ভাগ করা হয়েছে। এক একটির দৈর্ঘ্য ৪০ মিনিট। প্রথম দফায় একসঙ্গে পাঁচটি এপিসোডের মুক্তি হয়েছে। এর পরের সিজিনে আসবে আরও পাঁচটি। বড়পর্দায় ছবিটির পরিচালক ছিলেন মেরি কম খ্যাত উমঙ্গ কুমার। কিন্তু ‘স্যালুট মোদী’ ওয়েব সিরিজটি–র পরিচালনায় উমেশ শুক্লা।

গোটা ওয়েব সিরিজে দেখানো হয়েছে মোদীর জীবনের একাধিক ঘটনা। দেখানো হয়েছে সামান্য চা ওয়ালার ছেলে থেকে তাঁর দেশের প্রধানমন্ত্রী হয়ে ওঠার সফর। কীভাবে মোদী কৈশোরে আরএসএস দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়েছিলেন— সেসবই  দেখানো হয়েছে মোদীর বায়োপিক নিয়ে ওয়েব সিরিজ ‘স্যালুট মোদী’তে। ২ এপ্রিল নির্বাচন কমিশন দেশের স্বার্থে পিছিয়ে দেয় মোদীর বায়োপিকের মুক্তির তারিখ। বলা হয় ভোটের আগে এভাবে নরেন্দ্র মোদীর বায়পীক দেখালে তার প্রভাব পরবে ব্যালেট বাক্সে।

তাই রাজনৈতিক স্বার্থে ৭ দিন পিছিয়ে যায় মুক্তি। সেখানে দাঁড়িয়ে আজ ওয়েব সিরিজ ‘স্যালুট মোদী’র মুক্তি, ঠিক কতটা প্রভাব ফেলতে পারে ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনে? ডিরেক্টর উমেশ শুক্লা বললেন ‘ সিনেমা একটা আর্ট।কোনও রাজনৈতিক মদতপুষ্ট প্রচার নয়’। আগামী ১২ এপ্রিল বড় পর্দায় মুক্তি পাবে বিবেক ওবেরয় অভিনীত ‘পিএম নরেন্দ্রমোদী’। রিলের মোদীর সঙ্গে পরিচয় হবে তামাম সিনেমা প্রেমী মানুষদের। তার আগেই ওয়েব সিরিজের মুক্তি কতটা প্রভাব ফেলতে পারে বড় পর্দার ব্যবসায়। এই নিয়েও মুখ খুলতে নারাজ ‘পিএম নরেন্দ্র মোদী’র নির্মাতারা।