নিউজপোল ডেস্ক: বাঙালির জলখাবারের অন্যতম প্রধান মেনুই হল ঘুগনি। সঙ্গে লুচি বা পাউরুটি, যা-ই থাকুক না কেন, ঘুগনির থাকাটা যেন প্রায় বাধ্যতামূলক। ঝালে ঝোলে অম্বলে বাঙালির রুচিতে এই স্বাদ অমৃত। শুধু যে বাড়ির বানানো খাবারই তালিকায় আছে তা নয়, বরং এর বাইরের তালিকাটা লম্বা। হালকা ঝাল, একটু গোলমরিচ আর সামান্য মশলা ছড়িয়ে দেওয়া এক বাটি ঘুগনি, আহা! কিন্তু এই বাইরের খাবারের জায়গাগুলো কোথায় জানতে হলে ঠিকানাও জানা চাই। তেমনই কিছু লোভনীয় ঘুগনির ঠিকানা রইল এই প্রতিবেদনে। এই জায়গাগুলোর নিজস্ব ইতিহাসও আছে কিন্তু। ১) ডেকার্স লেন: নামেই বোঝা যাচ্ছে যে এর নতুন করে কোনও ভূমিকার দরকার নেই। পাঞ্জাব দিল্লিতে যেটা ‘ছোলে বটুরে’ এখানে সেটাই ঘুগনি। সুন্দর করে কাটা কাঁচালংকা, পেঁয়াজ, এবং গুঁড়ো মশলা ছড়ানো ঘুগনির স্বাদ জিভে জল আনার মতো। নানপুরি বা কচুরি যা-ই হোক, এর সঙ্গে মুখে দিতেই মিলিয়ে যায়। সঙ্গে চাটনি অন্য মাত্রা যোগ করে। স্থান— জেমস হিকি সরণি (ধর্মতলা) দাম- মাত্র ২০ টাকা। ২) বর্দান মার্কেট: ছোলার ব্যবহার দেখতে আর চাখতে গেলে এখানে আসতেই হবে। খাদ্যরসিক বাঙালি থেকে শুরু করে সকলেই এখানে এসে পেটপুজো সারতেই পারে। এখানে কুলচার সঙ্গে দেওয়া হয় ঘুগনি, চানামশলা। সুস্বাদু খাবারের দোকানের তালিকায় বর্দান মার্কেট আসবেই। যদি খাওয়া না হয়ে থাকে এখানে এসে গেলেই আশা মিটবে। স্থান— বর্দান মার্কেট দাম- ৪০ টাকা। ৩) নিউমার্কেট: হালকা নুন, গরমশলা, জিরেগুঁড়ো ছড়িয়ে ঘুগনি। ব্যস, জলখাবারের আদর্শ জায়গা। চলে এলেই হল। দেখলেই খিদে আরও বেড়ে যাওয়া অস্বাভাবিক কিছু নয়। দশ ভাজের রুটি আর কচুরির সাথে ঘুগনির ডিশ তুখোড় পার্টনারশিপ। বিশেষ আকর্ষণ তেঁতুলের চাটনি। স্থান—হগ্‌স মার্কেট দাম—৩০ টাকা। ৪) রামজি ঘুগনিওয়ালা: পার্ক স্ট্রিটের রামজিস-এর আউটলেটের নাম কে না জানে। প্রচুর ঝাল বা তেল এসব কিচ্ছু নয়। পেঁয়াজ, চাটনি, লেবু আর নারকেলই থাকে সাধারণত। তবে স্বর্গীয় স্বাদের আকাশকুসুম চিন্তা থাকলে মাটিতে নেমে এলেই ভাল। তবু এখানে ভিড়ের কমতি নেই। স্থান—পার্ক স্ট্রিট বম্বে ডাইং-এর বিপরীতে দাম— ৮০ টাকা। গড়িয়াহাট মার্কেট: গরম ঘুগনির ওপর মাখন! আর কী চাই? এর সঙ্গে যদি আরও কিছু মশলা যোগ হয় তবে জমে যায় ব্যাপারটা। এখানের বিশেষ আকর্ষণ ধনেপাতার চাটনি। কাঠের চামচে ঘুগনির এক অনির্বচনীয় স্বাদ। গড়িয়াহাট মার্কেটের বিশেষত্ব হল ঝালের সঙ্গে মশলা। সবচেয়ে ভাল লাগবে লুচির সঙ্গে খেলে। স্থান— গড়িয়াহাট মার্কেট, দাম—২০ টাকা।