নিউজপোল ডেস্ক: বর্তমানে নিউক্লিয়ার পরিবারে জন্মানো সন্তানরা একান্নবর্তী পরিবারে ভাই–বোনদের সঙ্গে থাকা কি তা হয়ত জানেই না। এখন প্রায় প্রত্যেকেরই একটি করে সন্তান রয়েছে। তাই দিদি–দাদা–ভাই–বোনদের সঙ্গে যে আনন্দ পাওয়া যায়, তা একা থাকায় নেই। সম্প্রতি এক সমীক্ষায় জানা গিয়েছে, ভাই–বোনদের সঙ্গে ঝগড়া করে যে সব সন্তানরা বড় হচ্ছে, তারা জীবনে খুব ভালো মানুষ হিসাবে পরিচিত হবে। বিশ্বের কোনও শক্তি তাদের ভাঙতে পারবে না।
ভাই–বোনের ঝগড়া এখন প্রত্যেকটি বাড়ির নিয়মিত বিষয় হয়ে গিয়েছে। বড় দাদা বা দিদির সঙ্গে ছোটদের খুনসঁুটি নিয়েই মেতে রয়েছে প্রতিটি পরিবার। তবে বিজ্ঞান বলছে, এই ঝগড়া যথেষ্ট স্বাস্থ্যকর। কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের মতে, ‘‌ছোটবেলায় আমরা যখন আমাদের ভাই–বোন বা দিদি–দাদার সঙ্গে ঝগড়া করি তার প্রভাব পড়ে আমাদের প্রাপ্তবয়সে কার্যক্ষমতার ওপর। কারণ এই ঝগড়া আমাদের মানসিক বৃদ্ধিকে পরিমিতভাবে গড়ে তোলে।’‌ পাঁচবছর আগে কেমব্রিজ ‘‌টডলার আপ’‌ নামে এই গবেষণা করেছিল। গবেষণায় উঠে এসেছিল, ভাই–বোনের ঝগড়া সামাজিক দক্ষতা বাড়াতেও সাহায্য করে।
গবেষণায় বলা হয়েছে, ভাই–বোনের ঝগড়ায় মৌখিকভাবে যে কড়া শব্দগুলি বলা হয় সেটাই মানসিক গঠনের জন্য খুব প্রয়োজনীয়। দেখা গিয়েছে, যে সব সন্তানরা ভাই–বোনদের সঙ্গে সবসময় ঝগড়া করছে, তারাই ভবিষ্যতে পরিণত এবং ভালো মানুষ হিসাবে সমাজে গণ্য হয়েছে। তাই যদি জীবনে সফল এবং ভালো মানুষ হতে চান তবে এখনই আপনার ভাই–বোনদের সঙ্গে ঝগড়া শুরু করে দিন। ‌