নিউজপোল ডেস্ক: গত শনিবার ১৮ মে-ই তিনি সর্বসমক্ষে প্রথমবার নিজের সমকামী সম্পর্কের কথা প্রকাশ করেন। তারপরই সংবাদমাধ্যমকে জানান যে তাঁর এই সম্পর্ক মেনে নিচ্ছে না তাঁর পরিবার। প্রেমিকাকে ত্যাগ না করলে, পরিবার থেকে বহিষ্কৃত করার হুমকিও দেওয়া হয়েছে বলে স্বীকার করেন ১০০ মিটার দৌড়ে জাতীয় রেকর্ডধারী দ্যুতি চন্দ।

দ্যুতির কথা মতো, বেশিরভাগ পারিবারিক সিদ্ধান্ত তাঁর বড় দিদির মতানুসারে হয়। তাঁর দিদির মতানুসারে, দ্যুতির প্রেমিকা তাঁর সঙ্গে সম্পত্তির লোভে সম্পর্কে রয়েছেন। বড় ভাইয়ের স্ত্রীকে অপছন্দ করতেন বলে, এর আগে তাঁর দিদি তাঁদের বড় ভাইকেও গৃহত্যাগ করতে বাধ্য করেছেন। সম্পর্ক না ভাঙলে তাঁর ক্ষেত্রেও সেরকমই করা হবে, এমনকী তাঁকে জেলেও পাঠানো হতে পারে বলে দিদি জানিয়েছেন। কিন্তু এই হুমকিতেও অকুতোভয় দ্যুতি জানাচ্ছেন, তিনি সাবালিকা এবং নিজের জীবনের সম্পর্কের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার অধিকার তাঁর রয়েছে।

প্রেমিকার নাম প্রকাশ না করে দ্যুতি জানিয়েছেন, তাঁরা একই গ্রামের বাসিন্দা এবং আত্মীয়। তাঁর ১৯ বছর বয়সি প্রেমিকা বর্তমানে ভুবনেশ্বর কলেজের স্নাতক স্তরে দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী। তিনি বাড়ি গেলে তাঁরা একসঙ্গে সময় কাটান। দ্যুতির মতে, গত পাঁচ বছরের এই প্রেমিকাই তাঁর আদর্শ জীবনসঙ্গী এবং এঁর সঙ্গেই তিনি বাকি জীবন কাটাতে চান। প্রেমিকার পরিবারের তরফ থেকে যে এই সম্পর্ক নিয়ে কোনও সমস্যা নেই, সে কথাও স্বীকার করেছেন দ্যুতি।

নিজেদের সম্পর্কের কথা প্রকাশ করা তাঁদের মিলিত সিদ্ধান্ত ছিল। তাঁরা চাননি ভবিষ্যতে পিঙ্কি প্রামাণিকের মতো ঘটনা তাঁদের সঙ্গে ঘটুক। ২০০৬ সালের এশিয়ান গেমস-এর ৪০০X৪ রিলে রেসে স্বর্ণপদক জয়ী দলের সদস্য পিঙ্কির বিরুদ্ধে তাঁর সঙ্গিনী ধর্ষণের অভিযোগ এনেছিলেন। পরিবারের তরফ থেকে কোনও সমর্থন না পেলেও, সারা দেশ তথা বিশ্ব রয়েছে দ্যুতির পাশে। নিজের সমকামী সম্পর্কের কথা প্রকাশ করার পর থেকেই সোশ্যাল সাইটে বহু মানুষের সমর্থন এবং অভিনন্দন পেয়েছেন দ্যুতি।