নিউজপোল ডেস্ক: বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে উঠতে পারেনি পাকিস্তান। তার ওপর চির-প্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের কাছে শোচনীয় হার হয়েছে। সম্ভবত জোড়া ধাক্কায় মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেছেন ওই দেশের এক ক্রীড়া বিশেষজ্ঞ। শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ম্যাচে ভারতীয় দলে মহম্মদ শামি না থাকায় তাঁর মন্তব্য, বিজেপি’র মুসলিম বিরোধী নীতিই এর জন্য দায়ী। বিশ্বকাপের শুরুতে প্রথম এগারোয় সুযোগ পাচ্ছিলেন না শামি। ভুবনেশ্বর কুমারই ছিল দলের প্রথম পছন্দ। পাক ম্যাচে হ্যামস্ট্রিংয়ে চোট পাওয়ায় ভুবির পরিবর্তে দলে আসেন বাংলার পেসার। হ্যাটট্রিক, পাঁচ উইকেট হল সহ চার ম্যাচে ১৪ উইকেট তুলে নেন তিনি। এরপর শ্রীলঙ্কা ম্যাচে শামি এবং চহালকে বসিয়ে ভুবনেশ্বর এবং জাদেজাকে খেলানো হয়। এই নিয়েই তাঁর দেশের এক টিভি চ্যানেলে উদ্ভট মন্তব্য করেছেন ওই ক্রীড়া বিশেষজ্ঞ।

উইকেট পেলেও প্রচুর রান দিয়ে ফেলেন শামি। ভুবনেশ্বর কুমার সেই তুলনায় অনেক কৃপণ বোলার। তিনি সুস্থ থাকলে তাঁকেই খেলানো হবে, এটাই স্বাভাবিক। পাক বিশেষজ্ঞের সেই স্বাভাবিক বিষয়টাই মাথায় এল না। তিনি বলেছেন, ‘আমি শামিকে বাদ দিতাম না। যে বোলার তিন ম্যাচে (আসলে চার ম্যাচ) ১৪ উইকেট পেয়েছে তাঁকে আচমকা বসানো হল। ও (শামি) রেকর্ডের কাছাকাছি যাচ্ছিল। সর্বাধিক উইকেট প্রাপকদের তালিকায় দুই বা তিন নম্বরে থাকতে পারত। বিষয়টা আমার মাথায় ঢুকল না।’ এই অবধি ঠিক ছিল। এরপর অত্যন্ত মূর্খের মতো বলে বসলেন, ‘আমার মনে হয় শামিকে বসানোর জন্য ভারতীয় দলের ওপর চাপ এসেছে। মুসলিমদের এগোতে না দেওয়ার বিজেপির যে এজেন্ডা তার কারণেই এই সিদ্ধান্ত।’