নিউজপোল ডেস্ক: রাজনীতির ময়দানে সবকিছুই সম্ভব। অসামাজিক কাজকর্ম থেকে ভোট কেনা-বেচা। তাহলে এত বিতর্কের কী হয়েছে? ঘটনাটি ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনকে ঘিরে। তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে অভিযোগ উঠল, ভারতীয় জনতা পার্টির ‘কর্মী’ বিবেক সোংকারকে দিলীপ ঘোষের সঙ্গে বিভিন্ন ভোট কেন্দ্রে ঘুরে বেড়াতে দেখা গেছে। এখান থেকেই বিতর্কের শুরু। বিবেক সোংকার নাকি সেদিন কেন্দ্রীয় বাহিনীর পোশাক পরেছিলেন। সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেস আহ্বায়ক দীপ্তাংশু চৌধুরী টুইটে লেখেন, ‘যাকে দিলীপ ঘোষের সঙ্গে দেখা যাচ্ছে, সেই বিবেক সোংকার সিআরপিএফ-র পোশাক পরে বুথে গিয়ে ভোটারদের ভয় দেখাচ্ছেন, হুমকি দিচ্ছেন।’ শুধু দীপ্তাংশু চৌধুরী নন, অন্যান্য নেতৃত্বও বিষয়টি নিয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছেন। বাহিনীর পোশাকের আড়ালে লুকিয়ে থাকলেও বিজেপির গুন্ডাদের সঙ্গে দেখা যাচ্ছে এই কর্মীকে বলেই দাবি তৃণমূল কংগ্রেসের। বিবেক সোংকারের যে ছবি টুইটারে দীপ্তাংশু চৌধুরী পোস্ট করেন সেখানে দেখা যাচ্ছে বিবেকের সঙ্গে যারা রয়েছে তাদের একজনের মাথায় গেরুয়া কাপড়, এটাকেই টুইটারে প্রধান অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করেন দীপ্তাংশু। তাঁর লেখায় আরও জানান, ‘হতেই পারে এরা সব বিজেপি কর্মী। একজনের মাথায় গেরুয়া কাপড়, একজন পরে রয়েছেন গেরুয়া কুর্তা।’ বিবেকের সঙ্গে সব যে বিজেপির গুন্ডাবাহিনীই ছিল সে বিষয়ে দীপ্তাংশু চৌধুরী একেবারে নিশ্চিত এমন তথ্যই উঠে আসছে তাঁর টুইট থেকে। অন্যদিকে তৃণমূলের এই অভিযোগের উত্তর দিতে হাজির ছিলেন না দিলীপ ঘোষ। কিন্তু বিজেপির এক মুখপাত্র জানান, যাকে ছবিতে দেখা যাচ্ছে নিঃসন্দেহে তিনি বিবেক সোংকার। তবে যে পোশাক তিনি পরে আছেন তা কেন্দ্রীয় বাহিনীর নয়। এমন পোশাক বাজারে কিনতে পাওয়া যায়, অহেতুক এ নিয়ে জলঘোলা করা হচ্ছে। বিবেকের বিরুদ্ধে অভিযোগ একেবারেই ভিত্তিহীন বলেও দাবি বিজেপি মুখপাত্রের। তৃণমূল নেতৃত্বের তরফে বলা হয় বিবেক সোংকারের কেন্দ্রীয় বাহিনীর পোশাক বিতর্ক সংক্রান্ত বিষয়টি তারা নির্বাচন কমিশনের নজরে আনবে।