নিউজপোল ডেস্ক:‌ এককালে নকশাল আন্দোলনের সঙ্গে জড়িয়ে গেছিলেন। বোঝেন সশস্ত্র বিপ্লবে সমাজের কোনও উন্নতি হবে না। তাই সরে এসে হাতে চক–ডাস্টার তুলে নেন সুভাষচন্দ্র কুণ্ডু। গত তিন দশক ধরে বসিরহাটের দুঃস্থ ছাত্রদের পদার্থবিজ্ঞান পড়িয়ে চলেছেন তিনি।
বসিরহাটে দোতলা লাল বাড়িতেই ছাত্র পড়ান কুণ্ডু স্যার। ১৯৮৮ সালে ভাইদের থেকে জমিটা কিনে নেন সুভাষচন্দ্র কুণ্ডু। ওই জমিতেই গড়ে তোলেন তাঁর অবৈতনিক কোচিং ক্লাস। দোতলা বাড়ির ছ’‌টা ঘরের মধ্যে দু’‌টোয় চলে ক্লাস। বাকি ঘরগুলোতে রয়েছে গবেষণাগার। পদার্থবিজ্ঞানের বেশিরভাগ যন্ত্রপাতি ঋণ করে কিনেছেন তিনি। কিছু আবার প্রাক্তন ছাত্ররা অনুদান হিসেবে দিয়েছেন। কুণ্ডু স্যারের অনেক প্রাক্তন ছাত্র এখন সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজ, আইআইটি–তে পদার্থবিদ্যা পড়ান। তাঁরাই বিভিন্নভাবে সাহায্য করেন স্যারকে।
এককালে বসিরহাট হাই স্কুলে পড়াতেন। পড়ানোর সময়ই নকশাল ভাবধারায় প্রভাবিত হন। ১৯৬৭–৭১ সক্রিয়ভাবে এই আন্দোলনে যুক্ত ছিলেন। জেলেও যান। ১৯৭৪ সালে জেল থেকে ছাড়া পান। তখনই সিদ্ধান্ত নেন, দেশের গরিবদের জন্য কিছু করবেন। মূলধন ছিল তাঁর পদার্থ বিজ্ঞানচর্চা। সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেন, সেই জ্ঞানই বিলিয়ে দেবেন, যাঁদের টাকা খরচ করে কোচিং ক্লাসে যাওয়ার সামর্থ্য নেই। যেই ভাবা, সেই কাজ। বিগত ৩০ বছর ধরে তাঁর এই কাজ কোনও বিপ্লবের থেকে কম নয়।

ছবি ফেসবুক থেকে