নিউজপোল ডেস্ক:

‘‌যদি আমি সঠিক পদ্ধতিতে এটা করি তবে এটা ম্যাজিক, আর যদি ভুল করি তো ট্র‌্যাজিক’‌। শেষ যাদু দেখানোর আগে এই দুই লাইনই বলেছিলেন ম্যাজিশিয়ান চঞ্চল লাহিড়ী। ম্যাজিক দেখতে আসা দর্শকরা ঘুণাক্ষরেও টের পাননি যে, জাদুকর যে ভুলটার কথা বলছেন, তা তিনি নিজেই এই ম্যাজিক দেখানোর সময় করে বসবেন। তাঁর একটা ভুলই তাঁকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিল।
যাদুর দুনিয়াতে খুবই প্রচলিত একটি খেলা ‘‌হুডিনি ট্রিক’‌। অনেকেই হয়ত এই ম্যাজিক সম্পর্কে অবগত রয়েছেন। টিভিতে এই ম্যাজিক বহুবার দেখিয়েছেন দেশ–বিদেশের দক্ষ এবং খ্যাতনামা জাদুকররা। আসলে বিখ্যাত জাদুকর হ্যারি হুডিনির নামেই এই ম্যাজিকের নাম রাখা হয়েছিল। ১৮৯৯ সালে হ্যারি হুডিনি এমন সব ম্যাজিক দেখাতেন, যা আজকের জাদুকররাও দেখাতে পারেন না। হ্যারি হুডিনির সবচেয়ে প্রিয় ম্যাজিক ছিল নিজেকে শেকল দিয়ে বেঁধে জলে লাফ দেওয়া এবং লোহার বাক্সে নিজেকে বন্দী করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে স্ট্যান্ট করা। এছাড়াও আরও অনেক দারুণ দারুণ খেলা দেখাতে পটু ছিলেন তিনি। হুডিনির পর তাঁর ম্যাজিকগুলি অনেকেই করার চেষ্টা করেছেন। যার মধ্যে কেউ সফল হয়েছেন আবার কেউ অসফল হয়েছেন। তাঁরই এক ম্যাজিকের নাম ‘‌হুডিনি বাটার ট্রিক’‌। এই পদ্ধতির যাদু দেখানোর সময় জাদুকরের হাত–পা বেঁধে দেওয়া হয়। এরপর শেকল দিয়ে পুনরায় বেঁধে তালা লাগিয়ে দেওয়া হয়। যাতে কোনওভাবে বাঁধন খুলে না যায়। এতকিছুর পর জাদুকরকে জলে নামিয়ে দেওয়া হয়। জলে নামার কয়েক সেকেণ্ডের মধ্যে যাদুকর নিজেই চেন ও হাত–পায়ের বাঁধন খুলে জলের মধ্য থেকে বেড়িয়ে আসেন। তবে কোন পদ্ধতি প্রয়োগ করে হাত–পায়ের শেকল খুলে ফেলতেন হ্যারি হুডিনি, তা তিনিই ভালো বলতে পারবেন। তবে এই যাদু দেখাতে গিয়ে ভুল পদ্ধতি প্রয়োগের ফলেই যে জাদুকর চঞ্চল লাহিড়ির মৃত্যু হয়েছে, সে বিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই।
রবিবার ম্যাজিক দেখাতে গিয়ে জলের তলায় তলিয়ে গিয়েছিলেন ম্যাজিশিয়ান চঞ্চল লাহি‌ড়ী। পূর্ব পরিকল্পনা মাফিক এদিন দুপুরে শিকল দিয়ে হাত–পা বেঁধে ক্রেনের সাহায্যে চঞ্চলকে গঙ্গায় ফেলেছিলেন তাঁর সহকারীরা। ম্যাজিশিয়ানের শরীরে জড়ানো ৩২ ফুট লম্বা শিকলের বিভিন্ন জায়গায় লাগানো ছিল মোট ছয়টি তালা। পায়ে তাঁর বাঁধা ছিল দড়ি। তালা–দড়ি খুলে জল থেকে উঠে আসার কথা ছিল জাদুকরের। সেই ডেথ ডাইভ দেখাতে গিয়েই নিখোঁজ হয়ে যান জাদুকর চঞ্চল লাহিড়ী। দেহ ভেসে ওঠে হাওড়ার বাজা কদমতলা ঘাট থেকে। তদন্তে জানা গিয়েছে, সুরক্ষাবিধির তোয়াক্কা না করে চঞ্চল শুধু ঝুঁকি নিয়েছিলেন তাই নয়, পুলিশের কাছে জমা দেওয়া অনুমতিপত্রেও জলে নামার বিষয়টি উল্লেখ করা হয়নি। তবে এর আগেও তিনি এই ট্রিক দেখিয়ে দর্শকের মন জয় করেছিলেন বলে জানা গিয়েছে।