নিউজপোল ডেস্ক:‌ প্রিয়জনের না থাকা!‌ যাঁরা হারিয়েছেন, তাঁরাই শুধু বোঝেন। প্রতিদিন বোঝেন। প্রতি মুহূর্তে বোঝেন। যত আনন্দই আসুক, সেই না–থাকা অপূরণীয়। এই বৃদ্ধের ক্ষেত্রেও ব্যতিক্রম হয়নি। নাতনির বিয়ে। হইচই করছে গোটা পরিবার। আনন্দে মেতে রয়েছে। তার ফাঁকেই একটু নিরালা খুঁজে খাবারের প্লেটটা নিয়ে যান মৃত স্ত্রীর ছবির সামনে। সেখানে বসেই তারপর ভাগাভাগি করে খান নাতনির বিয়ের ভোজ। ছবিটা তুলে সোশ্যাল সাইটে পোস্ট করেন নাতনি। সেই ছবিই এখন ভাইরাল।

আদর করে দাদুকে পওপও ডাকেন নাতনি সাহরাহ্‌ এলসউইক। টুইটারে লেখেন, ‘‌আমার বিয়েতে পওপও বসে মওমওয়ের সঙ্গে খাবার খেলেন’‌। সাহরাহ্‌ আর তাঁর স্বামী বিয়ের জায়গায় একটা সাদা চেয়ার রেখে দেন। যে সব আত্মীয়রা আর বেঁচে নেই, তাঁদের ছবি আটকে দেন চেয়ারে। নীচে লেখা, ‘‌নেহাতই স্বর্গ অনেক দূরে। নয়তো তোমরাও আজ থাকতে আমাদের সঙ্গে’‌। সেই চেয়ারের সামনেই বসে পড়েন বৃদ্ধ বিলি গ্রে। তার পর নিজের প্লেট থেকে খাবার তুলে খাইয়ে দিতে থাকেন স্ত্রীকে। দেখে চোখের জল আর ধরে রাখতে পারেননি নাতনি আর নাত–জামাই। সারাহ্‌র পোস্টটি ১৯ হাজার বার রিটুইট করা হয়েছে। ১ লক্ষ ৭৮ হাজার জন ইমোটিকন দিয়েছেন। অনেকেই আবার শ্রদ্ধা জানিয়েছেন বৃদ্ধের ভালবাসাকে। গ্রেস নামে একজন লিখেছেন তাঁর অভিজ্ঞতার কথা। তাংর দাদুও এক আত্মীয়ের বিয়েতে খেতে বসে স্ত্রীর ছবিতে টানা ১০ মিনিট ধরে চুমু খান। আর এক নেটিজেন লিখেছেন, ‘‌তোমার দাদুকে বলো, তাংর প্রিয়জন সব সময় তাঁর পাশেই রয়েছেন’‌।