নিউজপোল ডেস্ক: একজন ক্রিকেটারের জীবন কি শুধুওই ক্রিকেট মাঠে সীমাবদ্ধ? নাকি তার বাইরেও পরিচয় আছে? অবসর জীবনে বেশ কিছু ক্রীড়াবিদকেই রাজনীতির আঙিনায় দেখা গেছে। কিন্তু তাঁরা এতটাও ‘মহান’ পর্যায়ে পৌঁছননি যে নোটে তাঁদের ছবি ছাপা হবে। বিশ্বে একজনই ক্রিকেটার আছেন যাঁর স্মরণে নোট ছাপা হয়েছিল। তিনি ওয়েস্ট ইন্ডিজের কিংবদন্তি অধিনায়ক ফ্র্যাঙ্ক ওরেল। মাত্র ৪২ বছর বয়সেই মৃত্যু হয়েছিল তাঁর। তাতেও জনপ্রিয়তায় এতটুকু ভাটা পড়েনি। খেলা ছাড়তে না ছাড়তেই জামাইকার সেনেটর পদে নির্বাচিত হন তিনি। সেই পদে দু’ বছর সামলেছিলেন তিনি।

বাঁ দিক থেকে: নরি কন্ট্রাকটরের আঘাত পাওয়ার মহূর্ত। নরি, ওরেল।

ভারতের সঙ্গেও এক অবিস্মরণীয় স্মৃতি জড়িয়ে আছে তাঁর। ১৯৬২ সালে ক্যারিবিয়ান সফরে যাওয়া ভারতীয় দলের অধিনায়ক ছিলেন নরি কন্ট্রাকটর। ওয়েস্ট ইন্ডিজ বোলার চার্লি গ্রিফিথের একটি বলে ভয়াবহ আঘাত পান তিনি। চোট এতটাই গুরুতর ছিল যে তৎক্ষণাৎ হাসপাতালে নিয়ে যেতে হয়। অস্ত্রোপচারের পর রক্তের প্রয়োজন পড়লে ফ্র্যাঙ্ক ওরেল রক্তদান করে। কলকাতার ইডেন গার্ডেন্সে আজও সেই দিনটিকে ‘ফ্র্যাঙ্ক ওরেল ডে’ হিসেবে পালন করা হয়। রক্তদান অনুষ্ঠান আয়োজন করে স্মরণ করে মহান ক্রিকেটারটিকে শ্রদ্ধা জানানো হয়। তাঁর সম্মানে বার্বাডোজ সরকার একটি পাঁচ ডলারের নোট ছাপায়। মুদ্রায় কোনও ক্রিকেটারের নামাঙ্কন এই একবারই হয়েছে।