বিধানসভায় বামকংগেসের
  • বলা হয় বিধানসভা নাকি গণতন্ত্রের পীঠস্থান, যেখানে জনগণের জন্য প্রস্তাব রাখতে পারে যে কোনো রাজনৈতিক দলের নেতা-নেত্রীরা। কিন্তু স্বাধীনতার পর এই প্রথমবার কোন বামপন্থী এবং কংগ্রেস নেতা উপস্থিত থাকতে পারবেনা বিধানসভার ভেতরে। স্বাভাবিকভাবে পুরনো জমি দখল মানুষের কাছে নিজেদের অস্থিত্ব টেকাতে সমস্যার মধ্যে পড়তে হবে বাম এবং কংগ্রেসকে।কিন্তু স্বাধীনতার পর এই প্রথমবার কোন বামপন্থী এবং কংগ্রেস নেতা উপস্থিত থাকতে পারবেনা বিধানসভার ভেতরে। স্বাভাবিকভাবে পুরনো জমি দখল মানুষের কাছে নিজেদের অস্থিত্ব টেকাতে সমস্যার মধ্যে পড়তে হবে বাম এবং কংগ্রেসকে।
  • পাশের রাজ্য কেরল যখন চার দশকের রেওয়াজ ভেঙে বিধানসভায় বিরোধীশূন্য করল, 144 আসনের মধ্যে 99 আসনে জয়ী হন বাম গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট এল ডি এফ প্রার্থীরা।
  • তখনই 2021 বিধানসভা নির্বাচনে বাম কংগ্রেস এবং আই এস এফ এর হাত ধরে ব্রিগেড ময়দানে মহাজোট একপ্রকার মুখ থুবড়ে পড়ল, আর দেখা যাবে না জনগণের হয়ে বিধানসভার স্পিকারের কাছে টেবিল চাপড়ে মানুষের দাবি-দাওয়া নিয়ে লড়াই করতে পাশাপাশি দেখা যাবেনা আব্দুল মান্নান, সুজন চক্রবর্তী, মোহাম্মদ সেলিমের মত পাকা চুলের মাথার বাম কংগ্রেসের নেতৃত্বকে অনশনে বসতে বিরোধী-শূন্য বিধানসভায় বাম কংগ্রেস নেতারা না থাকলেও এবার শাসকদলের বিরুদ্ধে গলা ফাটাতে দেখা যাবে শুভেন্দু অধিকারী, মুকুল রায় কে সেটার দিকে তাকিয়ে বঙ্গ রাজনীতি। যদিও এই ব্যাপারে রাজনৈতিক মহলের বক্তব্য বিধানসভার ভেতর কার্যত অন্য ভূমিকায় দেখা যাবে শুভেন্দু অধিকারী এবং মুকুল রায়কে।বিধানসভায় বামকংগেসের
  • কিন্তু দেখার প্রশ্ন এটা শাসক দলের 215 জন বিধায়ক এর গলার স্বরে টেবিল চাপড়ে কতটা মানুষের কথা বলতে পারবেন মুকুল রায়, শুভেন্দু অধিকারী তার দিকে তাকিয়ে আছে রাজ্য রাজনীতি।

।।এক রাষ্ট্রনায়কের অজানা কথা।।

চীনের নতুন সাবমেরিন থেকে গোটা মার্কিন ভূখণ্ডে আঘাত হানা সম্ভব