নিউজপোল ডেস্কঃ কয়েকদিন আগেই কৃষকদের সঙ্গে ভার্চুয়ালে মিটিংয়ের সময়ে তৃণমূল সরকারকে বিঁধেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তাঁর অভিযোগ, তৃণমূল সরকার রাজনৈতিক কারণে বাংলার কৃষকদের কেন্দ্রে প্রকল্প থেকে বঞ্চিত করছে। এবার তারই পাল্টা দিলেন রাজ্যের অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র। ট্যুইট করে তিনি জানালেন, মিথ্যা কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়ের আমলে রাজ্যের আর্থিক বৃদ্ধি অনেকটাই বেড়েছে।  এদিন তিনি এ বিষয়ে একটি টুইটও করেন।

টুইটারে একটি ছবি পোস্ট করেন অমিত মিত্র। সেখানে কেন্দ্রের সঙ্গে রাজ্যের বিভিন্ন তফাতের বিষয়টিও তুলে ধরেন। সেই তালিকা অনুযায়ী, ২০১৯-২০২০ সালে অর্থবর্ষে দেশের জিডিপি বৃদ্ধির হার ৪.১৮ শতাংশ। সেখানে পশ্চিমবঙ্গের জিডিপি বৃদ্ধির হার ৭.২৬ শতাংশ।  দেশের জিভিএ বৃদ্ধির হার ৩.৮৯ শতাংশ। বাংলার জিভিএ বৃদ্ধির হার ৭.৩৯ শতাংশ। শিল্পের ক্ষেত্রে দেশের বৃদ্ধির হার ০.৯২ শতাংশ। বাংলার ৫.৭৯ শতাংশ। পরিষেবা ক্ষেত্রে দেশের বৃদ্ধির হার ৫.৫৫ শতাংশ। পশ্চিমবঙ্গের ৯.২৬ শতাংশ। কৃষিক্ষেত্রে বৃদ্ধির হার ৪.০৫ শতাংশ। একই ক্ষেত্রে বাংলার বৃদ্ধির হার ৪.৭৪ শতাংশ। এই তালিকাটি কেন্দ্রের পরিসংখ্যান ও পরিকল্পনা রূপায়ণ মন্ত্রকে এমনটাই দাবি করা হয়েছে ওই ছবিতে।

প্রসঙ্গত, পশ্চিমবঙ্গে কিষাণ সম্মান নিধি চালু না করার জন্য  মমতা সরকারের দিকে আঙুল তোলেন প্রধানমন্ত্রী। সেই সঙ্গে তিনি বলেন, এর ফলে বাংলার ৭০ লক্ষ কৃষক বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। রাজনৈতিক কারণেই এই সুবিধা থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে বলে দাবি করেন তিনি। যদিও পরে এটা নিয়ে প্রায় দেড়পাতার বিবৃতি দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানে তিনি বলেন, অর্ধসত্য কথা বলছেন দেশের প্রধানমন্ত্রী। চেষ্টা করছেন মানুষকে বিভ্রান্ত করার। এবার কার্যত সেই একই সুর শোনা গেল রাজ্যের অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্রের গলায়।