নর্থ লন্ডন ডার্বি বরাবরই সাক্ষী থেকে বেশ কিছু অসাধারণ গোলের। মাঠে যখন টটেনহ্যাম হটস্প‍্যার এবং আর্সেনাল, তখন গোল দেখতে না পাওয়াটা চূড়ান্ত হতাশের। তবে এ দিনের ডার্বি সাক্ষী থাকলো বিশ্বসেরা এক গোলের। সৌজন্য আর্জেন্টিনার মেসির সতীর্থ এরিক লামেলা।

দর্শকশূন্য এমিরেটস স্টেডিয়ামে শুরুটা ভালো করলেও হোসে মৌরিনহোর টটেনহ্যামকে শূন্য হাতেই ফিরতে হল আর্সেনালের হোম গ্রাউন্ড থেকে। ম্যাচের উনিশ মিনিটের মাথায় সনের পরিবর্তে মাঠে আসে এরিক লামেলা। আর ঠিক তেত্রিশ মিনিটের মাথায় লুকাস মৌরার পাশ থেকে বিস্ময়কর গোল তাঁর। বক্স ভর্তি ডিফেন্ডারের মধ্যে থেকে রাবোনা কিকে দ্বিতীয় পোস্ট দিয়ে বল জালে জড়িয়ে তিনি। এই গোল দেখে মুগ্ধ টটেনহ্যাম ফ্যানস সহ গোটা বিশ্ব।

এক গোলে লিড অবশ্য বেশিক্ষন ধরে রাখতে পারেনি মৌরিনহোর দল। চুয়াল্লিশ মিনিটে আর্সেনালের হয়ে গোল শোধ করেন মার্টিন ওডেগার্ড। হাফটাইমে এক এক গোলে দু’দল মাঠ ছাড়ে।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই সাকাকে তুলে নিয়ে নিকোলাস পেপেকে নামান আর্সেনাল কোচ মাইকেল আর্তেতা। খেলার তেষট্টি মিনিটের মাথায় বক্সের মধ্যে ফাউল করে স্যাঞ্চেজ। আর সেই পেনাল্টি থেকে গোল করতে ভুল করেননি লাকাজেট।

ম্যাচের উনসত্তর এবং ছিয়াত্তর মিনিটের মাথায় পরপর দুবার হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন টটেনহ্যাম গোলদাতা এরিক লামেলা। ম্যাচের শেষ লগ্নে হ্যারি কেনের শট পোস্টে লেগে ফিরে আসে।

ম্যাচ শেষে ঘরের মাঠে শেষ হাসি হাসে মাইকেল আর্তেতার আর্সেনাল। আঠাশ ম্যাচে একচল্লিশ পয়েন্ট নিয়ে এই মুহূর্তে প্রিমিয়ার লিগের দশ নম্বরে আছে আর্সেনাল। অপরদিকে সমসংখ্যক ম্যাচে পঁয়তাল্লিশ পয়েন্ট নিয়ে সপ্তম স্থানে টটেনহ্যাম।