নিউজপোল ডেস্কঃ দীর্ঘ সাত মাস অপেক্ষার পর ১ অক্টোবর থেকে অবশেষে স্বাভাবিক ছন্দে ফিরবে সাংস্কৃতিক জগৎ। কেন্দ্রের তরফে এখনও পর্যন্ত কোনও সিদ্ধান্ত না জানানো হলেও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তরফে শনিবার রাতে ট্যুইট করে পয়লা অক্টোবর থেকে শর্ত সাপেক্ষে সিনেমা হল খোলার অনুমতি দেওয়া হয়। মুখ্যমন্ত্রীর এই ঘোষণায় খুশি শিল্পী, কলাকুশলী থেকে সিনেমার হলের মালিকরা সকলে।রবিবার নিউটাউনে বিশ্ব বাংলা গেটের নিচে মুক্তমঞ্চের পক্ষ থেকে সমস্ত শিল্পী ও কলাকুশলীরা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কৃতজ্ঞতা এবং ধন্যবাদ জানানোর জন্য একত্রিত হন।

পাশাপাশি তাঁরা মুখ্যমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ করেন ৫০ জনের একটু বেশি জমায়েতের অনুমতি দিতে, তবে সেটা সামাজিক দূরত্ব মেনেই। কারণ কোথাও অনুষ্ঠান হলে শিল্পী ও কলাকুশলী মিলিয়েই যদি ৫০ জন থাকে, তাহলে দর্শক আসবে কীভাবে? অপরদিকে, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সিনেমা হল খোলার ঘোষণার সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন এসভিএফ এর কর্ণধার মহেন্দ্র সোনি। একটি বিবৃতিতে তিনি বলেন, ”আমরা খুশি, দিদির ঘোষণাকে স্বাগত জানাই। এই সিদ্ধান্ত শিল্প ও সংস্কৃতি জগতের ক্ষেত্রে একটা বড় স্বস্তি।ব্যবসা পুনরায় চালু করতে এই সিদ্ধান্তের খুবই প্রয়োজন ছিল। আশাকরি কেন্দ্রীয় সরকারও একই সিদ্ধান্ত নেবে। এসভিএফ এর সিনেমাগুলির মুক্তির ক্ষেত্রে আমরা নিরাপত্তা বজায় রেখেই সিদ্ধান্ত নেব।”

পরিচালক রাজ চক্রবর্তী জানান, ইন্ডাস্ট্রির থেমে যাওয়া কাজ শুরু হবে আবার, এটাই সবচেয়ে ভাল খবর। একদিনে সব স্বাভাবিক হবে না। আস্তে আস্তে হবে, তবে শুরুটা হওয়া দরকার ছিল।পুজোর মুখে মুখে শুভ সূচনা হচ্ছে, এর  থেকে ভালো কিছু হতে পারত না। রাজের দুটি ছবি হাবজি গাবজি আর ধর্মযুদ্ধ মুক্তির অপেক্ষায় দিন গুনছে। পরিচালক অরিন্দম শীলও স্বাগত জানিয়েছেন এই পদক্ষেপকে। তাঁর কাছে বড় পর্দায় সিনেমা দেখার সঙ্গে অন্য কোনও কিছুর তুলনা হয় না। ক্যামেলিয়া এন্টারটেইমেন্ট এর তরফে তাঁর পরিচালিত মায়াকুমারীও  মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে। মুখ্যমন্ত্রীর করা ট্যুইটি নিজের ট্যুইটারে শেয়ার করে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন অভিনেতা দেবও।