নিউজপোল ডেস্ক: তিনবছর আগে আচমকাই নোটবাতিলের সিদ্ধান্তে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছিল গোটা দেশে। সেই কারণে কেন্দ্র সরকারকে এখনও কটাক্ষ করে বিরোধীরা। বিশেষত দেশের অর্থনীতির বেহাল দশার প্রসঙ্গে নোটবাতিলের সিদ্ধান্তকে কার্যত ব্যর্থ বলেই দাবি করে তারা। এই পরিস্থিতিতে গত সপ্তাহেই কেন্দ্র সরকারের বিবৃতিতে বলা হয়েছিল, ২০০০ টাকার নোট তুলে নেওয়ার কথা। তবে কানাঘুষো শোনা যাচ্ছিল, ২০০০ টাকার নোট বন্ধের কথা। যদিও অর্থমন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে, এই মুহূর্তে ২০০০ টাকার নোটবাতিলের কোনও সম্ভাবনা নেই কেন্দ্রের।
২০১৬ সালের নভেম্বর মাসে নোটবাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল কেন্দ্র। ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট বাতিল করে আনা হয়েছিল নতুন ৫০০ ও ২০০০ টাকার নোট। ৫০০ টাকার নোট নিয়ে তেমন কিছু শোনা না গেলেও ২০০০ টাকার নোট নিয়ে জল্পনা চলছেই। তিনবছর আগের হঠাৎ নোটবাতিলের সিদ্ধান্তে জেরবার পরিস্থিতির কথা ভোলেননি দেশবাসী। তবে কেন্দ্রীয় অর্থদপ্তরের প্রতিমন্ত্রী অনুরাগ সিং ঠাকুর জানিয়েছেন, ২০০০ টাকার নোটবাতিলের সম্ভাবনা নেই আপাতত। এদিকে প্রাক্তন অর্থসচিব সুভাষ চন্দ্র গর্গ গত ৭ নভেম্বর ব্লগে লিখেছিলেন, ‘২০০০ টাকার নোট লেনদেনের উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা হচ্ছে না। এখন প্রচলনও কম দেখা যায়। যদি প্রচলন কম হয় এবং লেনদেনে বেশি ব্যবহৃত না হয়, তবে কেন এটিকে ছোট নোটের সঙ্গে প্রতিস্থাপন করবেন না? এটি নোট বাতিলের প্রস্তাব নয়। বরং ২০০০ টাকার নোটগুলিকে ছোট নোটে পরিবর্তন করার প্রক্রিয়া।’ তবে এটাও ঠিক যে, বাজারে ২০০০ টাকার নোটের ব্যবহার অনেকটাই কমেছে। এই সমস্যা রুখতে কেন্দ্র কী পদক্ষেপ করে, সেটাই দেখার বিষয়।