নিউজপোল ডেস্ক: শুক্রবার বাংলাদেশের যশোর সদর উপজেলার পুলেরহাট এলাকার শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের ভেতরে ৩ কিশোরের খুন এবং ১৫ জন আহত হওয়ার ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে।

ঘটনায় মৃত এক কিশোরের পরিবার জানিয়েছে, ঘটনা শুরু হয়েছিল ৩ আগস্ট চুল কাটাকে কেন্দ্র করে। কেন্দ্রের এক কিশোরকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল সংশোধনাগারে সকলের চুল কাটতে। এতজনের চুল কাটতে গিয়ে ছেলেটি ক্লান্ত হয়ে পড়ায় তিনি এক আনসার সদস্যের চুল কাটতে অস্বীকার করে বলে জানা গিয়েছে।

এই ঘটনায় আনসার সদস্যরা ক্ষুব্ধ হয়ে কেন্দ্রের তত্ত্বাবধায়কের কাছে অভিযোগ করে, ওই কিশোররা মাদকের নেশা করে পড়ে আছে। এই নিয়ে দুই পক্ষকে আলোচনার জন্য কেন্দ্রের তত্ত্বাবধায়ক ডাকলে দুই পক্ষের মধ্যে বাক বিতন্ডা চরম পর্যায়ে চলে যায়। এই সময় কেন্দ্রের কিশোরদের সাথে আনসার সদস্যদের সংঘর্ষ বেঁধে যায়। বেলা ১২ টা থেকে সংঘর্ষের ঘটনার জেরে ওই কিশোরদের গ্রিলের সাথে বেঁধে বেধড়ক মারধর করে আনসার সদস্যরা এবং কোন চিকিৎসা ছাড়াই সন্ধ্যা পর্যন্ত ফেলে রাখা হয় বলে অভিযোগ করেন নিহত এবং আহত কিশোরদের পরিবার।

জেলার পুলিশ সুপার মমহম্মদ আশরাফ হোসেন জানিয়েছেন, তদন্ত করে খুনের প্রকৃত কারণ জানার চেষ্টা চলছে। ইতিমধ্যেই শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের এক তত্ত্বাবধায়ক আবদুল্লাহ আল মাসুদকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। জেলার পুলিশ সুপার জানিয়েছেন, ঘটনায় এখনও কাউকে আটক বা গ্রেফতার করা হয়নি। ঘটনায় আহত, আহতদের পরিবার এবং শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের আধিকারিকদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।