**EDS: VIDEO GRAB** New Delhi: TMC MP Derek O'Brien attempts to tear the rule book as ruckus erupts in the Rajya Sabha over agriculture related bills, during the ongoing Monsoon Session, at Parliament House in New Delhi, Sunday, Sept. 20, 2020. (RSTV/PTI Photo)(PTI20-09-2020_000106B)

নিউজপোল ডেস্ক: কৃষি বিল নিয়ে রবিবার রাজ্যসভায় তুমুল গণ্ডগোলের ঘটনায় বরখাস্ত করা হল বিরোধী দলের ৮ জন সাংসদকে। তাঁদের মধ্যে আছেন তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন ও দোলা সেনও। বরখাস্তের তালিকায় থাকা অন্যান্য সাংসদরা হলেন, আপের সঞ্জয় সিং, কংগ্রেসের রাজীব সতাভ, সিপিআইএম-এর কেকে রাগেশ, কংগ্রেসের সৈয়দ নাসির হুসেন, কংগ্রেসের রিপুন বোরা, ও সিপিআইএম-এর এলামারাম করিম। রবিবার বিরোধীদের যে সাংসদরা কৃষি বিল নিয়ে রাজ্যসভায় তীব্র বিক্ষোভ দেখিয়েছিলেন, তাঁদের বিরুদ্ধে সোমবার অভিযোগ দায়ের করেন বিজেপির রাজ্যসভার সাংসদরা। তারই প্রেক্ষিতে রাজ্যসভার চেয়ারম্যান বেঙ্কাইয়া নাইডু বিরোধী সাংসদদের আচরণের তীব্র নিন্দা করে আটজনকে সাসপেন্ড করার সিদ্ধান্ত নেন।

রবিবার রাজ্যসভায় কৃষি বিল পেশ করার পরই বিরোধী সাংসদরা প্রবল বিক্ষোভ শুরু করেন। ওয়েলে নেমে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন তাঁরা। রাজ্যসভায় কংগ্রেস সাংসদ প্রতাপ সিং বাজোয়া স্পষ্ট জানিয়ে দেয়, ‘চাষিদের জন্য মৃত্যু পরোয়ানায় সই করবে না কংগ্রেস।’ এরপরই রাজ্যসভার ওয়েলে নেমে বিক্ষোভ দেখায় তৃণমূল কংগ্রেসও। ‘কালা কানুন ওয়াপস লো’ স্লোগান দিতে থাকেন তৃণমূল সাংসদরা। প্রবল হই হট্টগোল শুরু হয়ে যায়। প্যানেল চেয়ারপার্সনের চেয়ারের সামনে দাঁড়িয়ে সংসদের রুল বুক ছিঁড়ে ফেলেন তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও ব্রায়েন। ছিঁড়ে ফেলা হয় বিলের প্রতিলিপি। এরপরই স্থগিত হয়ে যায় রাজ্যসভার কাজ।

বিরোধী বিক্ষোভে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত বন্ধ ছিল রাজ্যসভার কাজ। এরপর দেড়টায় ফের অধিবেশন শুরু হতেই বিরোধীরা আগের অবস্থানই নিতে থাকেন। ভোটাভুটি করতে বিরোধীদের শান্ত হতে বলেন প্যানেল চেয়ারপার্সন। কিন্তু বিরোধীরা বিক্ষোভ দেখাতেই থাকেন। তার মধ্যেই ধ্বনি ভোটে পাশ হয়ে যায় বিল। কৃষকদের ধন্ধে ফেলার জন্যই কৃষি বিল নিয়ে রাজ্যসভায় অপ্রত্যাশিত নাটক করল বিরোধীরা। রবিবার সন্ধেয় সাংবাদিক সম্মেলন করে এই ভাষাতেই বিরোধীদের একহাত নেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং।

রাজনাথ বলেন, ‘রাজ্য সভায় দুটি বিল নিয়ে আলোচনা করার কথা ছিল, কিন্তু যেটা হল তা দুঃখজনক, লজ্জার। সংসদ যাতে মসৃণভাবে চলে তার দায় শাসক দলের পাশাপাশি বিরোধীদেরও। যেটা হল সেটা গণতন্ত্র নয়। রাজ্যসভায় ডেপুটি চেয়ারম্যানের সঙ্গে যা হয়েছে তা গোটা দেশ দেখেছে। লোকসভা বা রাজ্যসভা কোথাও এই ঘটনা আগে ঘটেনি।’