শ্রীজিতা ঘোষ:‌ ১৭টি চরিত্র। দুটো গল্প। একটা সিরিজ। একবাক্যে বলতে গেলে ঠিক এটাই হল আকিব হায়াত-এর পরবর্তী প্রজেক্ট ‘মৃতের চিঠি’। গল্পের প্রথম অধ্যায়ে থাকছে আকিবের লেখা, গাওয়া এবং সুর করা গান ‘সুইসাইড নোট’। এর অ্যারেঞ্জমেন্ট করেছে ‘উল্টো স্রোত’। দ্বিতীয় অধ্যায়ে থাকছে নবারুণ বোস-এর অ্যারেঞ্জ করা গান ‘মৃতের চিঠি’। এরও গায়ক-গীতিকার-সংগীতকার আকিব স্বয়ং। এই গানের মিউজিক ভিডিওতেই দেখা যাবে সমসাময়িক ১৭ জন শিল্পীকে। মজার ব্যাপার হল, এমনিতে পেশাদার মিউজিশিয়ন হলেও, এখানে প্রত্যেকেই কিন্তু অভিনেতার ভূমিকায়।
২০১৭ থেকেই আকিবের মাথায় নিজের গান ‘সুইসাইড নোট’-এর ভিডিওর পরিকল্পনা ছিল। ইতিমধ্যে এক সহকর্মী প্রশ্ন করেন, ‘সুইসাইড নোট’ এবং ‘মৃতের চিঠি’ কি এক? আদতে তো দুটো একই পরম্পরায় চলে— সুইসাইড নোট কোনও জীবিতের শেষ চিঠি এবং মৃতের চিঠি মানে মৃত ব্যক্তির প্রথম চিঠি। তখনই মাথায় আসে নতুন কিছু করার কথা। সহপরিচালক এবং সিনেমাটোগ্রাফার সোহমের সঙ্গে আলোচনা করেই ঠিক হয়, দুটো গান নিয়ে একটা গল্প বানিয়ে একটা মিউজিকাল চলচ্চিত্র বানানো যেতেই পারে। এই প্রকল্পে রয়েছেন সৌম্যদীপ চক্রবর্তী, প্রলয় সরকার, তমালকান্তি হালদার, সৌমিক দাশ, প্রাঞ্জল দাস, নবারুণ বোস, অভিষেক ‘নোনা’ ভট্টাচার্য, অ্যানি আহমেদ, সুদীপ্ত পাল, সন্দীপন ‘স্যান্ডি’ ভট্টাচার্য, কৌশিক দে, দীপায়ন ‘রিকি’ ঘোষ, সাম্য, শিবাশিস বন্দ্যোপাধ্যায়, আকিব হায়াত এবং রূপম ইসলাম। অভিনয়ের পাশাপাশি কয়েকজন জড়িত রয়েছেন আরও কিছু ভূমিকায়— নবারুণ – সাইন্ড ডিজাইনিং, অ্যারেঞ্জমেন্ট এবং কিবোর্ড, অভিষেক ‘নোনা’ – বেস, সন্দীপন ‘স্যান্ডি’ – ড্রামস, সাম্য – এস্রাজ এবং কৌশিক – গিটার।
চারপাশের মানুষকে পর্যবেক্ষণ এবং বোঝার চেষ্টা করা আকিবের নেশা। এভাবেই অনেক গান লিখেছেন তিনি। দেখতে দেখতেই তাঁর মন আসে, অভিনয় তো সবাই প্রত্যেক মুহূর্তে করছে। সেটাকে ক্যামেরাবন্দি করে ফেলতে পারলেই হয়। সহশিল্পীদের ক্ষেত্রে তাঁর মনে হয়েছিল, এঁরা প্রত্যেকেই নিজের কাজের জায়গায় প্রতিযোগিতামূলক এবং অনেকেই নিজেদের মিউজিক ভিডিওয় অভিনয় করেছেন। সুতরাং তাঁদের দিয়ে পেশাদারী অভিনয় করিয়ে নেওয়াটা কঠিন হবে না। পাশাপাশি ছিল আরও একটা উদ্দেশ্য। আকিবের নিজের কথায়, ‘গানটা আমি তো শুধু আমার জন্য প্রকাশ করছি না। করছি এটা ভেবে ভাল কনটেন্ট দিয়ে যদি ইন্ডিপেন্ডেন্ট মিউজিক সিনে কোনও মুভমেন্ট ঘটানো যায়। সুতরাং যাঁদের কাজ কোনও না কোনও ভাবে আমাকে অনুপ্রাণিত করেছে, তাঁদের কাজও এই মুভমেন্টকে এগিয়ে নিয়ে যাবে। এই সমস্ত শিল্পীকে যদি এক জায়গায় দেখানো যায়, তাহলে মানুষ আমার গানের পাশাপাশি এঁদের গানও খুঁজে শুনবেন। এই কাজ আরও একবার প্রচারের আলো আমাদের ওপর এনে ফেলবে বলে আমার বিশ্বাস।’
শিল্পীদের তালিকায় রয়েছে বেশ কিছু ভারি নামও। যেমন রূপম ইসলাম। আকিব জানালেন, ‘রূপমদা’কে অভিনয় করতে দেখা যাবে একটা বিশেষ চরিত্রে। একজন এত বড় মাপের শিল্পী হয়েও তিনি কাজ করার সময় যে কতটা সরল এবং সহযোগিতামূলক, সেটা একসঙ্গে কাজ না করলে বোঝা যাবে না। কাজ করার সময় এতটাই সহজ করে মেশেন, বোঝাই যায় না উনি একজন সেলেব্রিটি। আমার সৌভাগ্য উনি কাজটা করেছেন এবং দুর্দান্ত অভিনয় করেছেন। মানুষ অন্যভাবে পাবে এই রূপম ইসলামকে।’
খুব শিগগিরই প্রকাশিত হতে চলেছে ‘মৃতের চিঠি’। লক্ষ্যে স্থির থেকেও খুব মজা করেই এই প্রজেক্টে কাজ করেছেন বাংলা ইন্ডিপেন্ডেন্ট মিউজিকের সমসাময়িক সেরা শিল্পীরা। এখন তাঁদের অপেক্ষা মানুষের প্রতিক্রিয়া জানার।