নিউজপোল ডেস্ক: করোনার কারণে ব্যবসায় মন্দার কারণ দেখিয়ে প্রচুর কর্মী ছাঁটাই করেছে স্যুইগি, মার্ক অ্যান্ড স্পেনসার, অ্যাক্সেঞ্চার, কগনিজ্যান্টের মতো বহু নামী কোম্পানি। কারও পৌষ মাস তো কারও সর্বনাশ। করোনাভাইরাসের কারণে নিত্যদিন খবরে এসেছে অসংখ্য মানুষের বেকার হওয়ার ঘটনা। বহু কোম্পানির কর্মী ছাঁটাইয়ের ঘটনা। তবে ঠিক উলটো পরিস্থিতি অ্যামাজনে। ঘরবন্দি মানুষের অনলাইনে কেনাকাটা বৃদ্ধিতে ফুলে ফেঁপে উঠেছে এই টেক জায়েন্টের বৃদ্ধি। তারই সুফল দেখা দিতে চলেছে। প্রায় এক লাখেরও বেশি কর্মীকে নিয়োগ করতে চলেছে এই কোম্পানিতে। আমেরিকায়। শেষ ত্রৈমাসিকে ৪০ শতাংশ বৃদ্ধির সাক্ষী থেকেছে অ্যামাজন। বিশ্বের সর্বোচ্চ রিটেইলারের ২৬ বছরের ইতিহাসে এটাই সর্বাধিক বৃদ্ধি। অ্যামাজনের নিয়োগ পরিকল্পনা সংক্রান্ত খবরে জানা গিয়েছে, জিনিস তুলে প্যাক করে তা ক্রেতার দরজায় পৌঁছে দিতে বিপুল পরিমাণ কর্মীর প্রয়োজন তাদের।

আমেরিকা ও কানাডায় অ্যামাজনে প্রচুর ফুল টাইম ও পার্ট টাইম চাকরির পর খালি হয়েছে। চলতি মাসে তাদের যে শতাধিক নতুন ওয়্যারহাউসের কাজ শুরু হতে চলেছে সেখানকার জন্য কর্মী প্রয়োজন। অ্যামাজনের বিশ্বব্যাপী গ্রাহকের চাহিদা সংক্রান্ত বিষয়ক ভাইস প্রেসিডেন্ট বোলার ডেভিস এক সাক্ষাত্‍‌কারে জানিয়েছেন, ‘সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে সার্বিক অগ্রগতির লক্ষ্যে আমরা যাবতীয় ব্যবস্থা নেব।’ ডেভিস আরও জানিয়েছেন, এক লাখ কর্মসংস্থানের পাশাপাশি শীতকালীন ছুটির জন্যও কোম্পানির কী পরিমাণ কর্মী প্রয়োজন, তারও হিসেব নিকেশ করা হচ্ছে।

এর আগে, চলতি মাসের শুরুর দিকেই প্রযুক্ত ও কর্পোরেট ক্ষেত্রে ৩৩,০০০ কর্মী নিয়োগ করবে বলে ঘোষণা করে অ্যামাজন। গত মার্চে এক লক্ষ কর্মখালি ও এপ্রিলে ৭৫,০০০ নতুন চাকরির পদ খালি রয়েছে বলেও তারা ঘোষণা করেছিল। কোভিড ১৯-এর কারণে যাঁরা চাকরি খুইয়েছেন, এই পদগুলি তাঁদেরকেই অফার করা হয়েছিল। কেউ যদি অ্যামাজন ইন্ডিয়ায় চাকরির জন্য আবেদন করতে চান, তাহলে তার জন্যও নির্দিষ্ট পদ্ধতি রয়েছে। তা দেখে নিয়ে চেষ্টা চালাতে পারেন।