সম্প্রতি ভারতের স্বাধীনতা সম্পর্কে একটি বিতর্কমূলক কথা বলে আবারও কন্ত্রভার্সির সম্মুখীন কঙ্গনা।বাজি ধরলেন(@kanganaranaut) ভুল প্রমাণিত হলে পদ্মশ্রী ফিরিয়ে দেবেন।

কনট্রোভার্সি কুইন নায়িকার(@kanganaranaut) দাবি ১৯৪৭ সাল নয়, ২০১৪ সালে Narendra Modi-র প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পরই প্রকৃত স্বাধীনতা পেয়েছে দেশ।আর এতেই তুলকালাম।কিন্তু নিজের অবস্থান থেকে এক পাও সরতে নারাজ কঙ্গনা।

তাঁর স্পষ্ট দাবি,‘১৮৫৭ সালে প্রথম বার ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে সংগঠিত স্বাধীনতার লড়াই হয়।রানি লক্ষ্মীবাঈ-এর পর সুভাষ চন্দ্র বসু,বীর সাভারকারজীর মতো মহান ব্যক্তিরা আত্মবলিদান দেন দেশের জন্য।১৮৫৭ সালের যুদ্ধে কথা আমি জানি।কিন্তু দয়া করে বলবেন ১৯৪৭ সালে দেশ কোন যুদ্ধ লড়েছিল?আমি অন্তত সেই যুদ্ধে কথা জানি না।যদি কেউ এবিষয়ে আমার জ্ঞান বাড়াতে পারেন,তাহলে নিশ্চয়ই আমি ক্ষমা চাইব এবং একই সঙ্গে পদ্মশ্রী ফিরিয়ে দেব।’

angkanganaranaut: Our real independence in 1947 or 2014 - Kangana

তবে এখানেই থেমে থাকেননি তিনি।ইনস্টাগ্রাম স্টোরিতে(@kanganaranaut) একের পর এক ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এই বিষয়ে।লিখলেন,‘আমি শহিদ রানি লক্ষ্মীবাঈয়ে উপর ছবি তৈরি করেছি।তখন ১৮৫৭ সালের যুদ্ধ নিয়ে এক্সটেনসিভরিসার্চও করেছি।সেই সময় প্রথম ন্যাশনালিজমের জন্ম হয়,রাইট উইং সামনে আসে।কিন্তু হঠাত্‌ করেই তা মরে গেল কেন?কেন গান্ধীজী ভগত সিংকে মরতে দিলেন?কেন নেতা বসুকে মেরে ফেলা হল?কেন নেতাজী গান্ধীজীর কোনও সাপোর্ট পেলেন না?এক সাদা চামড়ার ব্যক্তিকে কেন দেশ ভাগ করার অধিকার দেওয়া হল?স্বাধীনতা সেলিব্রেট করার পরিবর্তে কেন ভারতীয়রা একে অপরকে খুন করতে লাগলেন? আমি এই সব প্রশ্নের উত্তর খুঁজছি।কেউ আমাকে প্লিজ সাহায্য করুন।’

কঙ্গনা রানাওয়াত একবার মুখ খুললে তাঁর কথা যে থামতেই চায় না,তা আগেও বহুবার দেখা গিয়েছে।এবারও তার কোনও ব্যতিক্রম হল না।তাঁর মতে, ১৯৪৭ সালে ফিজিকাল আজাদি পেয়েছিল ভারত।কিন্তু মানসিকতার স্বাধীনতা এসেছে ২০১৪ সালে।এই প্রথমবার নাকি ইংরেজি বলতে না পারার জন্য অথবা ছোট শহর থেকে আসার জন্য কাউকে ঠাট্টার শিকার হতে হচ্ছে না।