বেঙ্গালুরু এফসি-র বিরুদ্ধে মাঠে নামলেই যিনি জ্বলে ওঠেন, সেই অস্ট্রেলিয়ান ফরোয়ার্ড ডেভিড উইলিয়ামসের অনবদ্য গোলে এ দিন দাপুটে জয় নিয়ে লিগ তালিকার দুই নম্বরে উঠে এল এটিকে মোহনবাগান। তিন নম্বরে থাকা বেঙ্গালুরুর সঙ্গে এখন চার পয়েন্টের তফাৎ তাদের। শীর্ষে থাকা মুম্বই সিটি এফসি-র সঙ্গে পয়েন্টের কোনও তফাৎ নেই তাদের। শুধু গোল-পার্থক্যে এগিয়ে থাকার জন্য মুম্বই এখন এক নম্বরে।

১-০-য় জিতলেও সারা ম্যাচে আধিপত্য বিস্তার করে ছিলেন সবুজ-মেরুন ব্রিগেডের ফুটবলাররা। আক্রমণাত্মক ও আগ্রাসী ফুটবল খেলে সুনীল ছেত্রীদের ছাড়খার করে দেয় স্প্যানিশ কোচ আন্তোনিও লোপেজ হাবাসের দল। দুই কোচের কৌশলের লড়াইয়ে কার্লস কুয়াদ্রাতকে পিছনে ফেলে দেন হাবাস।

আধ ঘণ্টা ধরে রীতিমতো বিপক্ষকে শাসন করার পরে ৩৩ মিনিটের মাথায় অনবদ্য গোল করে দলকে এগিয়ে দেন ডেভিড উইলিয়ামস। মাঝমাঠ থেকে এডু গার্সিয়ার লবে বল পেয়ে বাঁ দিকের উইং থেকে কাট করে ঢুকে দুই ডিফেন্ডার হরমনজ্যোৎ খাবরা ও প্রতীক চৌধুরিকে বোকা বানিয়ে বক্সের মাথা থেকে কামানের গোলার গতিতে সোজা গোলে শট নেন। গুরপ্রীতের এ বার আর কিছুই করার ছিল না।

শেষ ২০ মিনিটে সমতা আনার জন্য তৎপর হয়ে ওঠে বেঙ্গালুরু এফসি। ৭৪ মিনিটে সুরেশের স্কোয়ার পাস থেকে গোলের সামনে বল পেয়ে যান ব্রাজিলীয় ফরোয়ার্ড ক্লেটন সিলভা। কিন্তু গোলের বাইরে শট নেন তিনি।৮৬ মিনিটে আক্রমণে লোক বাড়ানোর জন্য ডিফেন্ডার রাহুল ভেকের পরিবর্তে ফরোয়ার্ড সেমবয় হাওকিপকে নামান কুয়াদ্রাত। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সন্দেশ, প্রীতম, তিরিদের তোলা দেওয়াল আর ভেদ করতে পারেনি তাঁর দল।

পরিসংখ্যানে

বল পজেশন: এটিকে মোহনবাগান ৪৯% – বেঙ্গালুরু এফসি ৫১%

সফল পাস১৯৪/৩০৪ – ২৫১/৩৭৭

গোলে শট৪-২

ফাউল১১-১১

ইন্টারসেপশন১১-১৫

কর্নার১-৩

হলুদ কার্ড০-২

ম্যাচের সেরাডেভিড উইলিয়ামস