চলতি সপ্তাহে বাইসনের (Bison) একের পর এক মর্মান্তিক মৃত্যু রীতিমতো চিন্তার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে ময়নাগুড়িতে (Moynaguri)। গত সোমবার দুটি বাইসন মারা গিয়েছিল, শুক্রবারও দুটি বাইসনের হঠাত্‍ মৃত্যু ঘটে। এখনো পর্যন্ত শুক্রবারের এই বাইসন দুটির মৃত্যুর কারণ জানা যায়নি।

দেহ দুটি আপাতত ময়নাতদন্তের (postmortem)  জন্য পাঠানো হয়েছে। শুক্রবার ময়নাগুড়ি ব্লকের বারোহাতি এলাকায় মাত্র ২ ঘণ্টার ব্যবধানে অস্বাভাবিক ভাবে দুটি বাইসনের (Bison) মৃত্যু হয়। যা রীতিমতো চিন্তার ভাঁজ ফেলে দিয়েছে বনদপ্তর কর্মীদের কপালে। চলতি সপ্তাহে সোমবারও দুটি বাইসনের মৃত্যু ঘটেছিল। তবে তাদের মৃত্যুর কারণ চিহ্নিত করা গেছে।

একটি বাইসনের পেটে প্রচুর কৃমি হওয়ার কারণে মৃত্যু ঘটে এবং অপর বাইসনটি গর্ভবতী ছিল। পেটে কোন ভাবে আঘাত লাগার কারণে তার মৃত্যু হয়। বনদপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে এই মরশুমে বাইসনের শরীরে কৃমি হয়। তবে এই কারণে শুক্রবার দুটি বাইসনের মৃত্যু হয়েছে কিনা তা পষ্ট করে বলা যাবে না।

রামসাই সংলগ্ন ময়নাগুড়ি এলাকার আলুক্ষেতে শুক্রবার এই দুটি বাইসন মারা যায়। এলাকার প্রত্যক্ষদর্শীদের কথা অনুযায়ী, আলু ক্ষেতের একটি জায়গাতে এই দুটি বাইসন অনেকক্ষণ পর্যন্ত দাঁড়িয়ে ছিল। হঠাত্‍ করে মাটিতে পড়ে নিদারুণ কষ্টে ছটফট করতে থাকে। কিছু সময়ের ব্যবধানে দুটি বাইসনের মৃত্যু ঘটে। এই খবর পেয়ে মোবাইল স্কোয়াডের বনকর্মীরা তড়িঘড়ি ঘটনাস্থলে আসেন এবং দেহ দুটি ময়নাতদন্তের জন্য গরুমারায় পাঠান।

আপাতত বনদপ্তরের আধিকারিকরা মৃত্যুর কারণ খতিয়ে দেখছেন। একই সপ্তাহের মধ্যে চারটি বাইসনের মৃত্যু সত্যিই চিন্তার বিষয়। অনেকের অনুমান, অ্যাথ্রাক্স জাতীয় মারণ রোগে আক্রান্ত হয়েছিল বাইসন গুলি। কিন্তু বন দফতরের তরফ থেকে এখনও স্পষ্ট করে কিছু জানানো হয়নি। সবাই অপেক্ষা করছেন ময়নাতদন্তের রিপোর্টের জন্য।

আরো পড়ুন:  Alipore Zoo : জনসাধারণের জন্য খুলছে আলিপুর চিড়িয়াখানা