হাওড়া: রাম মন্দির নির্মাণের শিলান্যাসের দিন রাজ্য জুড়ে সম্পূর্ণ লকডাউন জারি রাখা ‘অসভ্যতা’ বলে দাবি করলেন বিজেপির জাতীয় নেতা জয় বন্দ্যোপাধ্যায়। পাঁচ অগাস্ট লকডাউন জারি করা নিয়ে রাজ্য সরকারকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করেছেন বিজেপির জাতীয় কার্যনির্বাহী কমিটির এই সদস্য।

মঙ্গলবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে জয় বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, “রাজ্য সরকার ইচ্ছা করে রাম মন্দিরের শিলান্যাসের দিনে লকডাউন জারি করা বর্বরতা এবং অসভ্যতা।” একই সঙ্গে তিনি আরও বলেছেন, “রাম মন্দিরের সঙ্গে সমগ্র দেশের আবেগ জড়িয়ে রয়েছে। সাড়ে ৪০০ বছরের অনেক লড়াই এবং ইতিহাস ওই মন্দিরের সঙ্গে জড়িয়ে আছে। ওই দিনটা রাজ্য সরকার ছাড় দেওয়াই যেতো।”

রাজ্য সরকারের লকডাউন উপেক্ষা করেই রাজ্যের সর্বত্র পাঁচ অগাস্ট ভগবান শ্রীরামের উপাসনা করা হবে বলে জানিয়েছেন জয় বন্দ্যোপাধ্যায়। সকালে এবং সন্ধ্যায় বিজেপির নেতাকর্মীরা অন্যান্য রাম ভক্তদের নিয়ে পুজার্চনা করবে বলে জানিয়েছেন তিনি। করোনা আবহে যাবতীয় বিধি নিষেধ মেনেই সব করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। পুলিশ বাধা দিলে? এই প্রশ্নের জবাবে জয় বলেছেন, “ওরা সংঘাত চাইলে আমরা সেই পথেই হাঁটব।”

নবান্নের পক্ষ থেকে একাধিকবার অগাস্ট মাসের লকডাউনের তালিকা বদল করা হয়েছে। কিন্তু কখনই পাঁচ অগাস্ট তারিখটিকে লকডাউনের তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়নি। ওই দিন অযোধ্যায় রাম মন্দিরের শিলান্যাস হওয়ার কথা। সেই কারণে রাজ্য সরকারের লকডাউনের তালিকা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে বিজেপি শিবির।

এদিন উলুবেড়িয়ায় এক বজরং বলি মন্দিরের উদ্বোধনের অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন জয়বাবু। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের দ্রুত আরোগ্য কামনায় একটি যজ্ঞের আয়োজন করেছিল হাওড়া গ্রামীণ সাংগঠনিক জেলার বিজেপি নেতৃত্ব। মন্দির উদ্বোধনের পরে সেই যজ্ঞের অনুষ্ঠানেও সামিল হন তিনি। ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিজেপির রাজ্য নেতা অনুপম মল্লিক, হাওড়া গ্রামীন জেলার নেতা গৌতম রায়, পাপিয়া মণ্ডলসহ অন্যান্যরা।