নয়াদিল্লি: রাজস্থানে কংগ্রেসের সরকার ফেলার কোনওরকম চেষ্টা করছে না ভারতীয় জনতা পার্টি৷ কংগ্রেসের তরফে তোলা এই অভিযোগ উড়িয়ে দেওয়া হল দলের পক্ষ থেকে৷ যদিও কংগ্রেসের দাবি, অশোক গেহলটের সরকার ফেলতে ষড়যন্ত্র করছে বিজেপি৷ তাদের বিধায়কদের মোটা টাকার প্রলোভন দেখানো হচ্ছে৷

এই নিয়ে রাজস্থান পুলিশের কাছে দু’টি অভিযোগও দায়ের করা হয়েছে কংগ্রেসের তরফে৷ দলের মুখপাত্র রণদীপ সুরজেওয়ালা এই ইস্যুতে সরাসরি বিজেপি নেতা তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী গজেন্দ্র সিং শেখাওয়াতের দিকে তোপ দেগেছেন৷ তাঁকে গ্রেফতারেরও দাবি তুলেছেন সুরজেওয়ালা৷

যদিও কংগ্রেসের এই অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে শুক্রবার নয়াদিল্লিতে দাবি করেছেন বিজেপির মুখপাত্র সম্বিত পাত্র৷ তাঁর পাল্টা দাবি, কংগ্রেস নেতারা নিজেদের ঘর গোছাতে না পেরে হতাশ হয়ে পড়েছে৷ তাই এই সব ভুলভাল দাবি করছে৷

রাজস্থান কংগ্রেসের তরফে একটি অডিয়ো ক্লিপ নিয়েও শোরগোল করা হচ্ছে৷ ওই অডিয়োতে বিধায়কদের মোটা টাকার প্রলোভনের বিষয়টি রয়েছে৷ রণদীপ সুরজেওয়ালা এদিন দাবি করেন যে এই ঘটনায় গজেন্দ্র সিং শেখাওয়াত জড়িত৷ যদিও বিজেপি নেতা সম্বিতের দাবি, ওই অডিয়ো ক্লিপ কংগ্রেসই তৈরি করেছে৷ নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে তারা বিজেপির ঘাড়ে দোষ চাপাচ্ছে৷

প্রসঙ্গত, রাজস্থান পুলিশের কাছে যে অভিযোগ কংগ্রেসের তরফে দায়ের করা হয়েছে, তাতে কোনও কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর নাম নেই বলেই জানা গিয়েছে৷ সূত্রের খবর, পুলিশের কাছে জমা দেওয়া অভিযোগে অবশ্য গজেন্দ্র সিং নাম লেখা হয়েছে৷ কিন্তু তিনি কেন্দ্রীয় মন্ত্রী কি না, তা উল্লেখ করা হয়নি৷

স্বাভাবিক ভাবেই তাই প্রশ্ন উঠছে যে সাংবাদিকদের সামনে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর নামে অভিযোগ তোলার পরও পুলিশের কাছে তার নাম জানানো হল না কেন? সাংবাদিক বৈঠক থেকে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে গ্রেফতারের দাবি করছে কংগ্রেস৷ অথচ পুলিশের কাছে কেন লিখিত ভাবে এই অভিযোগ জানাল না? তাহলে এই ঘটনায় বিজেপির নাম জড়িয়ে দেওয়া কি রাজনৈতিক কারণে৷

এদিকে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী গজেন্দ্র সিং শেখাওয়াত প্রত্যাশিত ভাবেই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন৷ তিনি সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন যে অডিয়োতে যাঁদের কথা শোনা যাচ্ছে, তার মধ্যে তিনি নেই৷