আরও নিম্নমুখী রাজ্যের কোভিড (COVID 19) গ্রাফ। গত ২৪ ঘণ্টায় বঙ্গে কমল দৈনিক সংক্রমিতের সংখ্যা। তবে মৃতের সংখ্যা বাড়ল খানিকটা। আর তার সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে উদ্বেগও।

রাজ্য স্বাস্থ্যদপ্তরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছে ৭৬৭ জন। দৈনিক সংক্রমিতের নিরিখে শীর্ষে কলকাতা। সেখানে ১৩১ জনের শরীরে মিলেছে ভাইরাসের হদিশ। দ্বিতীয় এবং তৃতীয় স্থানে রয়েছে উত্তর এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনা। এখনও পর্যন্ত রাজ্যে মোট ২০ লক্ষ ৯ হাজার ৭১৭ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। অ্যাকটিভ কেস ১৪ হাজার ১৮৪।

সংক্রমিতের সংখ্যা কমেছে ঠিকই। তবে চিন্তা বাড়াচ্ছে প্রাণহানি। শুক্রর তুলনায় শনিবার বাড়ল মৃতের সংখ্যা। গত ২৪ ঘণ্টায় ভাইরাস প্রাণ কেড়েছে ২৭ জনের। দৈনিক মৃতের নিরিখে শীর্ষে তিলোত্তমা। এখনও পর্যন্ত ২০ হাজার ৯৬৫ জন করোনার বলি।

তবে করোনা পরিস্থিতিতে স্বস্তি জোগাচ্ছে সুস্থতা। গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্তের তুলনায় সুস্থতা অনেকটাই বেশ। একদিনে ১ হাজার ৩৬১ জন সুস্থ হয়েছেন। এখনও পর্যন্ত ১৯ কোটি ৭৪ লক্ষ ৫৬৮ জন। সুস্থতার হার বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯৮.২৫ শতাংশ।

করোনা সংক্রমণ রুখতে নমুনা পরীক্ষার উপর জোর দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। গত ২৪ ঘণ্টায় ৪৪ হাজার ৩০০টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। এখনও পর্যন্ত মোট ২ কোটি ৩৬ লক্ষ ৮৬ হাজার ৮৫৩টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে পজিটিভিটি রেট ১.৭৩ শতাংশ।

ভাইরাসের কবলমুক্ত হওয়ার জন্য টিকাকরণে উপরেও গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। তাই জোরকদমে চলছে টিকাকরণ। গত ২৪ ঘণ্টা ৩ লক্ষ ৫৭ হাজার ৭৩৯ জন টিকা নিয়েছেন। প্রথম ডোজ পেয়েছেন ২৬ হাজার ৭৫৯ জন এবং বাকি ২ লক্ষ ৯০ হাজার ৯৫০ জন নিয়েছে দ্বিতীয় ডোজ। ক্রমশ কমছে করোনার সংক্রমণ। তবে এই পরিস্থিতিতে সামান্য উদাসীনতা বিপদ ডেকে আনতে পারে বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। তাই উপযুক্ত কোভিডবিধি মেনে চলার পরামর্শ দিচ্ছেন তাঁরা।