পুজোয় বেলাগাম জনতা। শিয়রে করোনার (Coronavirus)  তৃতীয় ঢেউ। তবু মাস্ক ছাড়াই দিব্যি রাস্তায় ঘুরছেন তাঁরা। আর তারই খেসারত স্বরূপ সপ্তমীর পর অষ্টমীতেও বাড়ল রাজ্যের দৈনিক করোনা সংক্রমণ। বেড়েছে মৃত্যুও। নমুনা পরীক্ষা কমলেও বেড়েছে পজিটিভিটি রেট। যা অত্যন্ত উদ্বেগজনক, বলছেন বিশেষজ্ঞরা।বুধবার সন্ধেয় স্বাস্থ্যদপ্তরের রিপোর্ট বলছে, গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে নতুন করে করোনায় (Coronavirus) সংক্রমিত হয়েছেন ৭৭১ জন, মৃত্যু হয়েছে ১১ জনের। কলকাতার দৈনিক সংক্রমণ ২০০-র গণ্ডি ছাড়িয়েছে।

 

রাজ্য স্বাস্থ্যদপ্তরের সাম্প্রতিকতম পরিসংখ্যান বলছে, গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে করোনার কবল মুক্ত হয়েছেন ৭৭৫ জন। সুস্থতার হার রয়েছে ৯৮.৩২ শতাংশ।

 

এ নিয়ে রাজ্যে মহামারীর কবল থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছেন মোট ১৫ লক্ষ ৫১ হাজার ৮৯০। মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৫, ৭৮, ৪৮২।

 

আর করোনার বলি মোট ১৮ হাজার ৯৩৫ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে করোনার নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ২৮ হাজার ১৮৭টি, যার মধ্যে পজিটিভ রিপোর্ট ২.৭৪ শতাংশ।

 

মঙ্গলবারের তুলনায় কমেছে নমুনা পরীক্ষা। কিন্তু বেড়েছে সংক্রমিতের হার। যার দরুন বেড়েছে চিন্তা।

 

দুই জেলার করোনা পরিসংখ্যান নিয়ে চিন্তা থাকছেই – কলকাতা এবং উত্তর ২৪ পরগনা। কলকাতায় গত ২৪ ঘণ্টায় ২০৩ জন আক্রান্ত হয়েছেন।

 

আর উত্তর ২৪ পরগনায় এই সংখ্যা ১২৮ জন। এছাড়া অন্যান্য জেলাতেও গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে অনেকটাই। হাতেগোনা কয়েকটা মাত্র জেলায় দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা ১০-এর নিচে।

 

উত্তর ২৪ পরগনায় মৃত্যু হয়েছে ৪ জনের। কলকাতা করোনায় প্রাণ হারাল ৩ জন। দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ২ জন এবং দার্জিলিং ও হুগলিতে একজনের মৃত্যু হয়েছে।

 

করোনায় তৃতীয় ঢেউ চোখ রাঙাচ্ছে। সাবধান হতে বলছেন চিকিৎসকরা। কিন্তু উৎসবের মরশুমে করোনাকে আমল দিতে নারাজ আমজনতা। আর তাই মণ্ডপে মণ্ডপে লম্বা লাইন। তাও আবার মাস্কবিহীন জনতার।