নিউজপোল ডেস্ক: ‘মব লিঞ্চিং’ নিয়ে জল্পনা অব্যাহত। আর এক নৃশংস ঘটনার সাক্ষী রইল অসম। ছেলেধরা ভেবে সশস্ত্র জনতা চড়াও হয়েছিল একদল ব্যক্তির ওপর। তাঁদের গাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেওয়ারও চেষ্টা করছিল তারা। এমনকী, পুলিশ রুখতে গেলে ক্ষুব্ধ জনতা তাদেরও আক্রমণ করে। দক্ষিণ অসমের হাইলাকান্দি জেলার নিতাইনগর গ্রামে গত শুক্রবার রাতে ঘটনাটি ঘটেছে।

পুলিশ কনস্টেবল জামিল হুসেন ছাড়াও আটজন ব্যক্তি গাড়িতে চেপে লস্করবাজারের দিকে যাচ্ছিলেন। সেই সময়ে আচমকাই তাঁদের ওপর চড়াও হন স্থানীয় বাসিন্দারা। সংবাদসূত্রে জানা গেছে, ক্ষুব্ধ জনতার হাতে সেই সময় অস্ত্র ছিল। মূলত ছেলেধরা অনুমান করেই এলাকার মানুষ চড়াও হয়েছিলেন ওই ন’জনের ওপর। গণপিটুনি ছাড়াও যে গাড়িতে চেপে ওই ন’জন ব্যক্তি লস্করবাজারের দিকে যাচ্ছিলেন, সেই গাড়িটি পুড়িয়ে দেওয়ার পরিকল্পনাও করেছিল স্থানীয় জনতা। এই খবর পেয়ে তৎক্ষণাৎ ঘটনাস্থলে দু’জন সিআরপিএফ জওয়ান-সহ পৌঁছন হাইলাকান্দি সদর থানার ওসি হেমন্তকুমার দাস ও পুলিশকর্মী অশোক চক্রবর্তী, আলগাপুর থানার ওসি বরাটচন্দ্র কর। কিন্তু সশস্ত্র আক্রমণকারীরা পুলিশের ওপরও চড়াও হন। এই ঘটনায় হাইলাকান্দির অফিসার ইন-চার্জ হেমন্তবাবু গুরুতর আহত হয়েছেন। তাঁকে শিলচর মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি করা হয়েছে। সুপারিন্টেন্ডেন্ট অফ পুলিশ পবিন্দ্রকুমার নাথের নির্দেশে পুরো ঘটনাটি তদন্ত করছে পুলিশ। গণপিটুনি এবং পুলিশের ওপর আক্রমণের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে সাধারণ মানুষের মনে। তবে জেলার ডেপুটি কমিশনারের তরফে তদন্ত চলাকালীন এলাকা শান্ত রাখার অনুরোধ করা হয়েছে। ‘মব লিঞ্চিং’ বা গণপিটুনির ঘটনা যেভাবে বেড়েই চলেছে, তা দেশবাসীর কাছে আশঙ্কার বিষয় বলেই মনে করছেন আমজনতা।