কোভিডের (Covid-19) জেরে ব্যবসায় টান পড়েছে কুমোরটুলিতে, জানাচ্ছেন মৃৎশিল্পীরা।

আজ বিশ্বকর্মা পুজো। কুমোরটুলির বাস ছেড়ে কয়েকশো মূর্তি পাড়ি দেন তাদের মণ্ডপের উদ্দেশ্যে।

তবে গত বছর থেকে কোভিডের (Covid-19) প্রকোপে এই রমরমায় বাধা পড়েছে বিপুল।

এই বছর বিশ্বকর্মা ঠাকুরের মূর্তি বিক্রির হার কমতে কমতে নেমে গিয়েছে ২৫ থেকে ৪০ শতাংশে। এহেন পতনে বিধ্বস্ত হয়ে পড়েছেন প্রতি বিক্রেতা।

Covid-19: Business crashes in Kumortuli due to Covid-19
কুমোরটুলি। সূত্র: পিন্টারেস্ট

শুধু মাত্র মূর্তি নয়, ব্যবসায় টান পড়েছে শোলার গয়না এবং সাজ-বিক্রেতাদেরও। কোভিডের বাজারে সমস্তরকম ব্যবসা থেমে গেছে তাঁদেরও।

আজকালকার দিনে গণেশ পুজোয় মেতেছে কলকাতা। কিন্তু আগে বিশ্বকর্মা পুজোর হিড়িক ছিল বেশি।

বিশ্বকর্মা পুজো দিয়ে শুরু হতো পুজোর মরশুম।

এখন সেই চল উঠে গেছে।

আর এত কম মূর্তি বিক্রি হওয়ার ফলে প্রত্যেক মৃৎশিল্পই আশাহত হয়ে পড়েছেন।

মৃৎশিল্পী প্রদ্যুৎ পাল জানিয়েছেন, যে আগে কমপক্ষে পাঁচটি বড় মূর্তি এবং বহু মাঝারি এবং ছোট সাইজের মূর্তি বিক্রি হতই তাঁর।

কিন্তু এই কোভিড (Covid-19) এসে তাঁর বিক্রি এক ধাক্কায় অনেকখানি কমে গেছে।

এই বছর কেবল দুইটি বড় মূর্তি এবং অল্প কিছু ছোটখাটো মূর্তি বিক্রি করতে পেরেছেন তিনি।

আগের বছরেও করোনা এবং আমফান এসে কুমোরটুলির ব্যবসা ভঙ্গ করেছিল।

এবারের দৃশ্যটাও একইরকম।

শুধু মৃৎশিল্পী নয়, যারা প্রিন্টিং প্রেসে কাজ করেন, তাঁদের অবস্থাও একইরকম।

ব্যবসায় একেবারেই টান পড়ে গেছে সকলেরই, এই কোভিড-কালে।

সবাই এখন কোভিড কাটার অপেক্ষায় রয়েছে, যাতে জীবনযাত্রা আবার আগের মতো হতে পারে।

আরো পড়ুন:

Corona: শিয়রে পুজোর সাথে শিয়রে কোভিড