মালদার কালিয়াচকের ছায়া এবার হীরাপুরে । একই রকমের এক নৃশংস ঘটনার সম্মুখীন হল এলাকাবাসীরা ।

ভাই ও মা – কে খুন করল হীরাপুরের এক যুবক । এই ঘটনার নেপথ্যেও রয়েছে সেই একই কারণ সম্পত্তি !

সূত্রের খবর বৃহস্পতিবার বিকালে এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে হীরাপুর থানার অন্তর্গত বার্নপুরের আজাদ নগরে

। তবে ভাই , মা – কে খুনখুন (crime)  করার পর ঘটনাটি গােপন করেনি ওই যুবক ।

Double murder in madah
হিরাপুরের সেই বাড়ি

ঘটনার পরই পুলিশের কাছে গিয়ে আত্মসমর্পণ করে সে ।   পুলিশ সূত্রের খবর হল , মৃতদের নাম আখতারি খাতুন ( ৬৫ ) ও মহম্মদ আফতাব আলম ( ৩২ ) ।

বার্নপুর আজাদ নগরের বাসিন্দা আখতারি খাতুনের ছেলে মহম্ম পাপ্পু আলম ।

আখতারি খাতুন এবং ভাই মহম্মদ আফতাব আলমকে পাপ্পু নৃশংসভাবে খুন করেছে ।  অভিযােগ এমনটাই ।

ঘটনার পরই সে হীরাপুর থানায় এসে আত্মসমর্পণ করে ।

 

এলাকাবাসী দের কথায়  জানা গিয়েছে , হীরাপুর থানার অন্তর্গত বার্নপুরের আজাদ নগরে

তিন সন্তান ও পরিবারের লােকেদের সঙ্গে থাকতেন আখতারি খাতুন ।

তার আরেক ছেলে পাপ্পু আলম আসানসােল উত্তর থানার রেলপাড়ে থাকতেন ।

এদিন বিকেলে সে হঠাৎ আজাদ নগরের বাড়িতে আসে ।

বাড়িতে তখন আখতারি খাতুন ছিলেন না । তাকে ডেকে পাঠায় পাপ্পু ।

বিকালে আখতারি খাতুন আসতেই বাড়ির মূল ফটক বন্ধ করে দেয় পাপ্পু ।

এরপর পরিবারের অনান্যদের একটি ঘরে ঢুকিয়ে প্রথমে ভােজালি দিয়ে ভাই আফতাবের গলায় কোপ বসায় পাপ্প ।

 

তারপর মা আখতারি খাতুনকে ঘণ্টা খানেক ধরে চৌবাচ্চার জলে ডুবিয়ে রেখে কার্যত নৃশংসভাবে খুন করে সে ।

মা ও ভাইকে খুন (crime)  করার পর বােধহয় টনক নড়ে পাপ্পুর ।

তখন সে নিজেই হীরাপুর থানায় যায় এবং গােটা ঘটনার কথা জানিয়ে আত্মসমর্পণ করে ।

পাপ্পুর মা ও ভাইকে খুন করার নৃশংস বর্ণনা শুনে হতবাক হয়ে যান হীরাপুর থানার পুলিশ আধিকারিকরাও ।

যদিও হঠাৎ করে পাপ্পু কেন মা ও ভাইকে খুন করেছে তা স্পষ্ট করে জানায়নি সে ।

তবে জমি , জায়গা নিয়ে পারিবারিক বিবাদের জেরেই এই ঘটনা ঘটায় ওই যুবক ।

এই খুন বলে প্রাথমিক তদন্তে জানতে পেরেছে । হীরাপুর থানার পুলিশ ।

পাপ্পুকে গ্রেফতার করে বিরুদ্ধে খুনের মামলা রুজু করেছে পুলিশ ।