নিউজপোল ডেস্ক: মৃত্যুর পর অন্তেষ্ট্যি ক্রিয়ার সময় মৃতের পরিবার পরিজন যতটা সম্ভব মৌনতা অবলম্বন করেন। স্বাভাবিকভাবেই তাঁরা সে সময় শোকার্ত থাকেন। কিন্তু আয়ারল্যান্ডে এক ব্যক্তির কফিনবন্দি দেহ কবরে শোয়ানোর পর উপস্থিত সবাই হাসতে শুরু করলেন। কারণ রসিকতা করেছেন মৃত ব্যক্তিটিই। ভাববেন না তিনি বেঁচে আছেন, সত্যিই গত হয়েছেন।

রহস্যটা খোলসা করা যাক। জীবতকালে খুবই মজার মানুষ ছিলেন শে ব্র্যাডলি। মৃত্যুর পরেও তাঁর ছাপ ছেড়ে গেলেন। আসলে মৃত্যুর আগে একটি অডিও রেকর্ড করে রেখে গেছিলেন শে। তাঁর শেষ ইচ্ছা হিসেবে তাঁর দেহ কবরে শোওয়ানোর পর তা চালাতে অনুরোধ করেছিলেন তিনি। সেই অনুযায়ী, ব্যাগপাইপারের বিদায়ী মূর্ছনা শেষ হতেই কবর থেকে ভেসে আসে শে’র কণ্ঠস্বর। তিনি বলছেন, ‘আমাকে বেরোতে দাও। এখানে খুব অন্ধকার।’ প্রথমে শে’র গলা শুনে অনেকে অবাক হলেও পরে বুঝতে পেরে হাসির রোল ওঠে। এদিকে চলতে থাকে শে’র রেকর্ডিং, ‘আমাকে এখান থেকে বের করো। আমি কি পুরোহিতের গলা শুনতে পাচ্ছি?’ ব্যাপারটা এমন হয়, যেন মারা গিয়েও কথা বলছেন শে। সেরকমটাই উদ্দেশ্য ছিল তাঁর। শোকের আবহ বদলে মুহূর্তে হাসির রোল ওঠে।

শে ব্র্যাডলি

ফেসবুকে এই ঘটনার ভিডিও পোস্ট করেছেন শে’র কন্যা অ্যান্ড্রিয়া ব্র্যাডলি। তিনি ভিডিও পোস্ট করে লিখেছেন, ‘আমার বাবার মৃত্যুকালীন ইচ্ছা। বরাবর মজার মানুষ ছিলেন। ঠিক যখন দরকার তখন আমাদের হাসালেন। চিরকাল তোমায় ভালবাসব।’ একই কথা বললেন শে’র স্ত্রীও। জানালেন, ‘বরাবর মজার মানুষ, সবসময় অন্যরকম ভাবনাচিন্তা করত আর একটা লার্জার দ্যান লাইফ চরিত্র ছিল।’ সত্যিই, এমন অদ্ভুত এবং সুন্দর আইডিয়া সাধারণ মানুষের মাথায় আসা সম্ভব নয়।