মাদক মামলায় শুক্রবার ফের আরিয়ান খানের জামিনের আবেদন খারিজ করে দিল মুম্বইয়ের(Mumbai) আদালত। বৃহস্পতিবারই আরিয়ানের ১৪ দিনের বিচারবিভাগীয় হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছিল মুম্বাইয়ের আদালত।

আজ, শুক্রবার ছিল তাঁর জামিনের আবেদনের শুনানি। আরিয়ানের পক্ষে মুম্বাইয়ের আদালতে সওয়াল করেন আইনজীবী সতীশ মানেশিণ্ডে।

জামিনের আবেদন জানান তিনি। কিন্তু শুক্রবারও আরিয়ানের জামিনের আবেদন খারিজ করে দেয় মুম্বাই(Mumbai)আদালত।

তাই আপাতত বলিউডের বাদশার ছেলের জায়গা আর্থার রোড জেলের কোয়ারেন্টাইন সেলে ঠাঁই হচ্ছে। গত শনিবার মুম্বইয়ের একটি বিলাসবহুল ক্রুজ থেকে আটক করা হয় আরিয়ান ও তাঁর সঙ্গীদের।

তারপর রবিবার শাহরুখপুত্র আরিয়ানকে গ্রেপ্তার করা হয়।

প্রথমে নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরোর হেফাজতে ছিলেন আরিয়ান, মুনমুন ধামেচা ও আরবাজ মার্চেন্ট।

এরপর শুক্রবার ধৃতদের বিচারবিভাগীয় হেফাজতের নির্দেশ দেওয়া হয়।

তবে আরিয়ানের অন্তর্বতী জামিনের শুনানি শনিবারই শুরু হয়ে গিয়েছিল।

সূত্রের খবর, শুক্রবার আরিয়ানের জামিনের দাবিতে মুম্বাইয়ের আদালতে আইনজীবী সতীশ মানেশিণ্ডে এজলাসে জানান,

যেদিন থেকে শাহরুখপুত্রকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, তাঁর বিরুদ্ধে এমন কোনও প্রমাণ বা তথ্য পাওয়া যায়নি যে কারণ দেখিয়ে তাঁকে জেলে রাখা যেতে পারে।

এরপর আরিয়ানের(Ariyan) উকিল মানেশিণ্ডে, তাঁর মক্কেলের জামিনের আবেদন মঞ্জুর করেন।

তাঁর মতে, আরিয়ানকে জামিন দিয়েও তদন্তের কাজ চালানো যেতে পারে।

কিন্তু তাঁর সেই আবেদন মঞ্জুর করেনি মুম্বাইয়ের আদালত।

এবার সেশন কোর্টে জামিনের জন্য আরজি জানাতে হবে আরিয়ানের আইনজীবীকে।

উল্লেখ্য, শুক্রবার অর্থাৎ আজ শাহরুখ-পত্নী গৌরীর জন্মদিন। এই বিশেষ দিনে তাঁর ছেলে ঘরে ফিরবে, এই আশাই হয়তো ছিল গৌরীর।

তবে সেই আশা তাঁর পূরণ হল না। এবার এই বিষয়ে মুখ খুললেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি দিলীপ ঘোষ(Dilip Ghosh)। তাঁর কথায়, “মহারাষ্ট্রে এখন শিবসেনা সরকার।

Dilip Ghosh says about Ariyan case Mumbai
দিলীপ ঘোষ

পুলিশ, NCB তাদের হাতে আছে। একসময় মুম্বই(Mumbai) ছিল ক্রাইমের নগরী।

সেই সময় বিজেপি-শিবসেনা সরকার উদ্ধার করেছে।

মুম্বাই পুলিশ যদি এগুলো এখন এসব বন্ধ করার জন্য করে, তাহলে তাতে কষ্ট পাওয়ার কোনও কারণ নেই।”

বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি আরও বলেন, “যাঁরা ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির দুনিয়াকে ড্রাগ আর ক্রাইম দিয়ে ভরিয়ে দিয়েছেন, তা যদি মুক্ত হয় তাহলে দেশের সিনেমা শিল্পের উন্নতি হবে বলেই আমি মনে করি।

মুম্বাই পুলিশ তাদের কর্তব্য করছে, কারও অসুবিধা হলে তারা আদালতে যেতে পারেন।”

আরও পড়ুন –

Supreme Court: সুপ্রিম কোর্টের চাপের মুখে যোগী সরকারের পুলিশ