রাজস্থানের থর মরুভূমিতে পাওয়া গেছে ডাইনােসরের পায়ের ছাপ! খবর প্রকাশ্যে আসতেই আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে সারা এলাকা জুড়ে।

 

সূত্রের খবর প্রাগৈতিহাসিক যুগে পৃথিবীর বুকে ঘুরে বেড়ানাে বৃহদাকার ডাইনােসরের পায়ের ছাপ পাওয়া গেছে জয়সলমীর জেলার অন্তর্গত থর মরুভূমি অঞ্চলে। এই অঞ্চলে একসময় সমুদ্র উপকূল ছিল বলেই মনে করছেন প্রত্নতাত্ত্বিকরা। পরবর্তীকালে আবহাওয়া ও জলবায়ুর পরিবর্তনের সাথে সাথে ছাপগুলি শক্ত পাথরের মতাে হয়ে গিয়েছে। পায়ে ছাপগুলি মােট তিন ধরণের ডাইনােসর প্রজাতির বলে জানা গেছে।

 

 

সূত্রের খবর , এই প্রজাতির ডাইনােসরেরা মূলত ১২ থেকে ১৫ মিটার লম্বা এবং ওজনে ছিল ৫০০ থেকে ৭০০ কেজির মধ্যে। এই তিন প্রজাতির মধ্যে ইউব্রোনেটস জাইগ্যানটিয়াস এবং ইউব্রোনেটস গ্লেনরােসেনসিস প্রজাতির ডাইনােসরগুলির পায়ের ছাপ ৩৫ সেন্টিমিটার। অপর প্রজাতিটি এ্যালাটর। এটির পায়ের ছাপ ৫.৫ সেন্টিমিটার।

 

যােধপুরের জয় নারাইন ব্যাস বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক অধ্যাপক বীরেন্দ্র সিং পারিহার জানান, ‘ এই পায়ের ছাপগুলি ২০০ মিলিয়ন বছর পুরনাে। জয়সলমীরের একটি গ্রামের কাছে পাওয়া গিয়েছে এই ছাপগুলি। তিন পা বিশিষ্ট এই পায়ের ছাপগুলি জুরাসিক যুগের। পায়ের ছাপ থেকে অনুমান করা যায় এগুলি কোনও বৃহদাকার মাংসাশী প্রাণীর। সেই অধ্যাপক আরও জানান , গভীর পর্যবেক্ষণের পর বােঝা সম্ভব হয়েছে এই প্রজাতির ডাইনােসরগুলির দাঁত লম্বা ছিল এবং হাতের পাঞ্জাও ছিল ভারী। বর্তমান আমেরিকাতেও সেই সময় এই প্রজাতির ডাউনােসরেরা ঘুরে বেড়াত বলেও অনুমান করা হচ্ছে।

 

 

এই নিয়ে আরও পর্যবেক্ষণ এবং গবেষণা প্রয়ােজন বলেও জানান অধ্যাপক। তবে তাঁর কথায় , ‘ এটা সবে শুরু । আগামীদিনে রাজস্থানে আরও এই ধরণের প্রজাতির পায়ের ছাপ কিংবা দেহাংশের সন্ধান পাওয়া যেতে পারে। ‘

 

 

উল্লেখ্য , এর আগে ব্রিটেনে হদিশ পাওয়া গিয়েছিল ঠিক একইরকম ডাইনােসরের পায়ের ছাপ।  হেস্টিংস মিউজিয়াম অ্যান্ড আর্ট গ্যালারির কিউরেটর ফিলিপ হ্যাডল্যান্ড এই পায়ের ছাপগুলি আবিষ্কার করেন। যিনি একাধারে ব্রিটেনের পাের্টসমাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বৈজ্ঞানিকও বটে।  তিনি জানিয়েছেন , কেন্ট এলাকায় পাথরের গায়ে ৬ টি ডাইনােসরের পায়ের ছাপ পাওয়া গিয়েছে। প্রথমে সেটি হাতির পায়ের ছাপ মনে হলেও পরে আরও খতিয়ে দেখে বােঝা যায় এটি অর্নিথােপডিক্স নামে বিলুপ্ত প্রজাতির কোনও প্রাণীর পায়ের ছাপ। এই পায়ের ছাপ আনুমানিক ১১০ মিলিয় বছর পুরনাে এমনটাও জানিয়েছিলেন তারা।  বিজ্ঞানীদের অনুমান ছিল , পিঠে কাঁটা জাতীয় অ্যাঙ্কিলােসরাস , তিন পা বিশিষ্ট থেরােপডস , মাংসাশী টাইরেনােসরাস , টাইরেনােসরার রেক্স , তৃণভােজী ও ডানা বিশিষ্ট অর্নিথােপডসের পায়ের ছাপ এগুলি।