নিউজপোল ডেস্কঃ কোভিড-১৯ এর উৎস সম্পর্কে বিশদ তথ্য সংগ্রহে আগামী ১৪ জানুয়ারি চিনে যাচ্ছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিশেষজ্ঞ দল। অনেক গড়িমসির পর অবশেষে ‘হু’-র (WHO) বিশেষজ্ঞ দলে স্বাগত জানাতে তৈরি চিন। এমনটাই জানিয়েছে আন্তার্জাতিক সংবাদ সংস্থা এএফপি। মূলত চিনে করোনার উৎস সন্ধানের উদ্দেশ্যে ‘হু’-র বিশেষজ্ঞ দলের সদস্যরা বেরিয়ে পড়লেও বেজিং থেকে অনুমোদন না মেলায় কয়েকদিন আগেই হতাশা ব্যক্ত করেছিলেন টেড্রস আধানম ঘেব্রেয়াসিস। তবে অবশেষে সম্মতি মেলায় চিনের উদ্দেশে রওনা হবেন তাঁরা। 

বেজিং-এর সম্মতি না পাওয়ায় টেড্রস আধানম ঘেব্রেয়াসিস বলেন, ” আমরা শেষ মুহূর্তে জানতে পারলাম যে কোভিড বিশেষজ্ঞদের যে দলটি চিনে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত হয়েছে। তাঁদের সেদেশে প্রবেশের অনুমতি এখনও চূড়ান্ত করেনি চিন। যা খুবই হতশাজনক।” কোভিড বিশেষজ্ঞদের চিনে প্রবেশের প্রক্রিয়াকে ইচ্ছাকৃত দেরি করিয়ে দেওয়ায় বেজিংয়ের বিরুদ্ধে বিশ্বজুড়ে ক্ষোভের বাতাবরণ তৈরি হয়। একটা বিষয় স্পষ্ট হয়ে যায় যে বেজিং করোনার উৎস সন্ধানে বাধা দিচ্ছে। বলা বাহুল্য, ‘হু’-র বিশেষজ্ঞ দল যে চিনে গিয়ে করোনার উৎস সন্ধান করবে, তাই আগেভাগেই বেজিং ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মধ্যে একটা চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। গত বছর মে মাসে বিশ্ব স্বাস্থ্য অ্যাসোসিয়েশনের বৈঠকে হয় সেই চুক্তি। বিশ্ব স্বাস্থ্য অ্যাসোসিয়েশন হল ‘হু’-র হয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণকারী সংস্থা। সেই সময় এই প্রস্তাবে সায় দিয়েছিল চিন।

২০১৯-এর নভেম্বরে প্রথম করোনা আক্রান্তের সন্ধান মিলেছিল চিনের হুয়ান প্রদেশে। ১৭ নভেম্বর ২০১৯-এ হুয়ান প্রদেশে বছর ৫৫-র এক ব্যক্তি প্রথম করোনায় আক্রান্ত হন। তারপর থেকেই মারন এই ভাইরাস ছড়িয়ে পরে গোটা বিশ্বজুড়ে।