“প্রথমে ভারতবর্ষের বিরোধী দল হব তারপরে ভারতবর্ষের প্রথম সেবক দল হব। এতদিন শুধু শাসকদলরা কাজ করত। এখন সেবক দলও কাজ করবে”- বৃহস্পতিবার এক সাংবাদিক সম্মেলনে এমনটাই দাবি করলেন ফিরহাদ হাকিম (Firhad Hakim)।

পশ্চিমবঙ্গের পুর নির্বাচন নিয়ে বার বার আদালতের দারস্থ হয়েছে বিজেপি (BJP)। সেই প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে ফিরহাদ হাকিম(Firhad Hakim) দাবি করেন,

বিজেপি নিজেদের আত্মবিশ্বাস হারিয়ে ফেলেছে এবং সেই কারনেই তারা ছন্নছারা হয়ে এসব কাজ করছে। এরপরেই তিনি আরো বলেন,

বিজেপি বাংলা থেকে হারিয়ে গেলে তা বাংলার পক্ষে এবং সকল মানুষের পক্ষেই ভাল। ফিরহাদ হাকিম আরও বলেন,

পশ্চিমবঙ্গে বাম (Left Front) সরকারের শাসনের আমলে তৃণমূল বহু নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করেছে বিরোধী দল হিসেবে।

কিন্তু বহু সমস্যার সম্মুখীন হয়েও কখনও নির্বাচন বন্ধ করার জন্য আদালতে যায়নি তৃণমূল।

কিন্তু আমাদের আদালতের উপর ভরসা আছে, বিজেপি যাই চাইবে আদালত তাই দেবে এমনটা কখনোই নয়।

এরপর তৃণমূলের ভোটের প্রচার সম্পর্কে ফিরহাদ হাকিম জানান, তৃণমূলকে (TMC) প্রচার করার দরকার পড়ে না।

কারণ তারা সারা বছর মানুষের সেবায় নিযুক্ত রয়েছেন এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সারা বছর মানুষের জন্য বহু প্রকল্প করে চলেছেন।

মে মাসে বিধানসভা নির্বাচন এবং পরবর্তী উপনির্বাচন, সবগুলিতেই দেখা গেছে বাংলার মানুষ কীভাবে তৃণমূলের পাশে দাঁড়িয়েছে। ত্রিপুরার নির্বাচন প্রসঙ্গে ফিরহাদ হাকিম(Firhad Hakim) বলেন,

‘ত্রিপুরায় মানুষের গণতন্ত্র রক্ষায় ব্যর্থ হয়েছে বিপ্লব দেবের সরকার।

এর জবাব তৃণমূল কংগ্রেস(TMC) দেবে।’

তিনি এও হুশিয়ারি দেন যে বিজেপি ভোট লুঠ করতে পারে কিন্তু মানুষের অধিকার লুঠ করতে পারবে না তারা।

তিনি এও দাবি করেন যে মানুষের মনের মধ্যে তৃণমূল ঢুকে গেছে এবং ভবিষ্যতে তাই ত্রিপুরায়(Tripura) তৃণমূল কংগ্রেসই সরকার বানাবে।