শুধু কোভিড নয়। হরিয়ানায় উদ্বেগ বাড়িয়েছে কালো ছত্রাকের সংক্রমণ মিউকরমাইকোসিস। সে কারণে হরিয়ানায় এক সপ্তাহ লকডাউনের মেয়াদ বাড়াল বিজেপি সরকার। করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের জন্য এবার আরও কড়া বিধি জারি হবে রাজ্যে।

পাশাপাশি পাঞ্জাবেও সংক্রমণের হার এখনও যথেষ্ট বেশি। ৯ থেকে ১৫ রাজ্যে সংক্রমণের হার ছিল ১৩.‌১ শতাংশ। তাই ৩১ মে পর্যন্ত পাঞ্জাবেও থাকবে আংশিক লকডাউন। পাশাপাশি কালো ছত্রাকের সংক্রমণের ওপর কড়া নজর রাখছে রাজ্যের স্বাস্থ্য দপ্তর। উত্তরপ্রদেশের মতো ভুল তারা করতে চায় না। গ্রামে সংক্রমণ রুখতে ‘‌কোভিড ফতে’‌ প্রকল্প চালু করলেন মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং। এই প্রকল্পে গ্রামের মানুষকে বিশেষভাবে সচেতন করা হবে। সংক্রামিতদের ওপর নজর রাখা হবে।
এই নিয়ে তৃতীয়বার হরিয়ানায় লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানো হল। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ সামাল দিতে ৩ মে থেকে ৭ দিনের জন্য লকডাউন চালু হয়। ১০ তারিখ ফের মেয়াদ বাড়িয়ে ১৭ মে পর্যন্ত রাজ্যে লকডাউন জারি হয়। এবার আরও এক সপ্তাহ।

গত ২৪ ঘণ্টায় হরিয়ানায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৯ হাজার ৬৭৬ জন। মারা গিয়েছেন ১৪৪ জন। রাজ্যে এখন সক্রিয় করোনা রোগীর সংখ্যা ৯৫ হাজার ৯৪৬। এখন পর্যন্ত সে রাজ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬ লক্ষ ৮৫ হাজার ৩১২ জন। মারা গিয়েছেন, ৬ হাজার ৫৪৬ জন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাস্তবে সংখ্যাটা সরকারি পরিসংখ্যানের থেকে অনেক বেশি।
হরিয়ানায় মিউকরমাইকোসিসে সম্প্রতি আক্রান্ত হয়েছেন অন্তত ৪০ জন। এবার এই প্রাণঘাতী সংক্রমণকেও লাগাম পরাতে চায় প্রশাসন। ইতিমধ্যে প্রশাসন জানিয়েছে, এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার নথি সরকারকে জানাতে হবে হাসপাতালগুলোর। তাহলেই একমাত্র রোগ নিয়ন্ত্রণ সম্ভব।