File Picture

নিউজপোল ডেস্ক: মঙ্গলবার নবান্নে সাংবাদিক বৈঠক ডেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পঠন পাঠন শুরুর বিষয়ে ৫ সেপ্টেম্বর টার্গেট করে আমরা এগাবো। ওইদিন শিক্ষক দিবস, অর্থাৎ ড: সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণণনের জন্মদিন থেকে আমরা চেষ্টা করবো ‘অল্টারনেটিভ ডে’ করে ক্লাস শুরু করার।

করোনা সংক্রমণের প্রতিষেধক মূলক নিয়ম এবং দূরত্ব মেপে। স্কুল কলেজ আপাতত ৩১ জুলাই পর্যন্ত বন্ধই থাকবে। করোনা এখন হাই পিকে রয়েছে। আগস্টের শেষ দিকে কমে এলে তখন এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া যাবে। নাহলে নতুন করে ভাবতে হবে। মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, এই বিষয়ে আগস্টের শেষের দিকে সিদ্ধান্ত জানানো হবে।

দীর্ঘ লকডাউনের জেরে রাজ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে তালা ঝুলছে। পড়ুয়াদের সঙ্গে অভিভাবক এবং অভিভাবকিরা দুশ্চিন্তায় রয়েছেন। মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিকের ফলপ্রকাশ হয়ে গিয়েছে। নতুন করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি প্রক্রিয়া এখন। এমনই এক আবহে রাজ্যে আগস্ট মাসের আলাদা আলাদা ৯ ধরে লকডাউন ঘোষণা করে দিয়েছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। রাজ্যে করোনা সংক্রমণের পরীক্ষা কেন্দ্র বাড়ানো হয়েছে এমন দাবি করেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। কিন্তু তাসত্ত্বেও করোনায় মৃত্যু মিছিল ঠেকানো যাচ্ছে না।

এই নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী এবং রাজ্য সরকার চিন্তিত তা মঙ্গলবারে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাংবাদিক বৈঠক থেকে স্পষ্ট। আগামী এক মাস অর্থাৎ গোটা আগস্ট মাস কিভাবে করোনার বিরুদ্ধে লড়তে হবে রাজ্যবাসীকে তার গাইডলাইন ইতিমধ্যেই সাংবাদিক বৈঠক করে জানিয়ে দিয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। জমায়েত এড়িয়ে চলা, মুখে মাস্ক পড়ার ওপরে গুরুত্ব দেওয়ার সঙ্গে আরোও কিছু পথ বাতলে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। সংক্রমণ যাতে না ছড়ায় সেই কারণে ৩১ জুলাই পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সব মিলিয়ে রাজ্য করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় করোনা নিয়ন্ত্রক বিধি নিষেধ কড়াভাবে প্রয়োগ করতে আটঘাট বেঁধেই নেমে পড়েছে।