নিউজপোল ডেস্ক: নিজের নতুন ছবি ‘ছপাক’-এর প্রচারের জন্য সম্প্রতি টিকটক সংস্থার কর্ণধারদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন দীপিকা পাড়ুকোন। এরপরই টিকটক অ্যাপে দীপিকার ‘ওম শান্তি ওম’, ‘পিকু’ এবং ‘ছপাক’ ছবির মেকআপ করে দেখানোর একটি প্রতিযোগিতা শুরু হয়। ‘ছপাক মেকআপ চ্যালেঞ্জ’-কে কেন্দ্র করেই নেটিজেনদের একাংশের রোষে পড়েছেন অভিনেত্রী।

নেটিজেনদের একাংশের দাবি হল, ছবির প্রচারের কারণে একজন অ্যাসিড আক্রান্ত মহিলার চেহারা মেকআপ করে দেখানোর প্রতিযোগিতা অত্যন্ত অসংবেদনশীল। এই বিষয়ে বেশ খোলসা করেই নিজেদের মত প্রকাশ করেছেন নেটিজেনরা। একজন টুইটার সদস্যের মন্তব্য, ‘দীপিকার ‘ছপাক মেকআপ চ্যালেঞ্জ’ নিয়ে সমস্যা হল, তিনি এটাকে নিজের একটি ‘লুক’ বলে ধরছেন এবং এর সঙ্গে জড়িত মানসিক আঘাতকে নস্যাৎ করছেন। তিনি প্রমাণ করে দিয়েছেন যে এটা শুধুই মেকআপ এবং অ্যাসিড আক্রান্তদের যন্ত্রণার গভীরতা সম্পর্কে কোনও ধারণাই নেই তাঁর।’

কেউ কেউ এটাও জানিয়েছেন, যে ছবিটি দীপিকার মেকআপকে কেন্দ্র করে নয়। বরং এটি সারাজীবনের মতো ক্ষতবিক্ষত হওয়া এক মহিলার কাহিনী। নিজের নতুন ছবি ‘ছপাক’-এ দীপিকা একজন অ্যাসিড আক্রান্ত মহিলা ‘মালতি’-র চরিত্রে অভিনয় করেছেন। ছবিটি লক্ষ্মী আগরওয়াল নামক এক অ্যাসিড আক্রান্তের জীবনের ভিত্তিতে তৈরি।

সাম্প্রতিককালে বেশ কয়েকবারই শিরোনামে এসেছেন দীপিকা পাড়ুকোন। গত ৫ জানুয়ারি জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়াদের ওপর অজ্ঞাত পরিচয় মুখোশধারীদের হামলার পর সেখানেও গিয়েছিলেন তিনি। এরপর থেকেই নানা রকম রোষের সম্মুখীন হতে হচ্ছে তাঁকে। বিরোধী মতের সমর্থকরা এই কারণেই ‘ছপাক’-কে বিশেষ ভাবে নেতিবাচক রেটিং দিচ্ছেন বলে অনুমান করা হচ্ছে। এর ফলে, মার খাচ্ছে এই ছবির ব্যবসা।