নিউজপোল ডেস্কঃ আবারও সোশ্যাল মিডিয়ায় এমন এক ভিডিও ভাইরাল হল যা দেখে সকলে প্রায় অবাক। বন্যপ্রাণীদের প্রতি পর্যটকদের দায়িত্বজ্ঞানহীন আচরণ দিনদিন বেড়েই চলেছে। এই প্রসঙ্গে এর আগেও সরব হয়েছেন বনবিভাগের আধিকারিকরা। বিভিন্ন ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করে জনগণকে সতর্ক করার চেষ্টা করেছেন তাঁরা বারবারই। তবে, লাভের লাভ কিছুই হয়নি। সদ্যই আবারও বন্যপ্রাণের উপর পর্যটকদের দায়িত্বজ্ঞানহীন আচরণের আরও একটি নিদর্শন প্রকাশ্যে এসেছে। যা নিয়ে বেশ হইচই বেশ বেড়েছে। 

সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও শেয়ার করেছেন ইন্ডিয়ার ফরেস্ট সার্ভিসের অফিসার সুরেন্দ্র মেহেরা। এই ভিডিটি ঠিক কোথায় তোলা হয়েছে তা এখনও জানা যায়নি। তবে ভিডিওতে দেখা গিয়েছে, পর্যটকদের একটি গাড়িকে ধাওয়া করছে এক পূর্ণবয়স্ক হাতি। পরিস্থিতি এমন যে, গাড়ির মুখোমুখি রয়েছে হাতিটি। স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে তার এলাকায় পর্যটকের গাড়ি এসে পড়ায় মোটেও খুশি হয়নি সে। তাই গাড়ির দিকে ধাওয়া করেছে সে। কেন এমন হল! অনেকেই অবাক হচ্ছে এমন পরিস্থিতি দেখে। 

ভিডিওতে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে, গাড়ি ঘুরিয়ে পালানোর বদলে, পর্যটকরা তখন সামনাসামনি হাতি দেখে প্রায় গলে যান। অত কাছ থেকে হাতি দেখে, ভিডিও তোলার লোভ সামলানো যায় নাকি। অতএব হাতিটি বিরক্ত হোক কিংবা নিজেদের প্রাণের ভয়ে থাকুক, হাতির প্রতিটি পদক্ষেপ ক্যামেরা বন্দি করতেই হবে। এমনকি ভিডিওতে এক মহিলা কণ্ঠস্বর শোনা গিয়েছে, যিনি বলছেন, ‘আরে কিচ্ছু হবে না’ তবে প্রথমে শান্ত ভাবে গাড়ির দিকে এগোলেও আচমকাই গতি বাড়িয়ে দেয় হাতিটি। বিকট শব্দে ডেকেও ওঠে। তখন সবাই ‘পালাও পালাও’ বলে গাড়ি ঘুরিয়ে পালান।

বলা বাহুল্য, ৬ হাজারেরও বেশি ভিউ হয়েছে এই ভিডিওতে। নেটিজেনরা বেশিরভাগই ওই পর্যটকদের এহেন আচরণে বেশ বিরক্ত হয়েছে। অনেকেই বলেছেন, ‘শান্ত ভাবে এলাকা ছেড়ে বেরিয়ে যাওয়ার বদলে ওরা হাতিটিকে উস্কানি দিচ্ছিল। এরপর অঘটন ঘটলে সকলে বলত দোষ করেছে ওই হাতিটি। কিন্তু আসলে দোষী কারা?’ এর পাশাপাশি সুরেন্দ্র মেহেরা ছাড়া আরও অনেক আইএফেস অফিসারই এই ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন। ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন বন্যপ্রাণ প্রেমীরাও। নিন্দা প্রকাশ করেছেন নিটিজেনরা।