নিউজপোল ডেস্কঃ করোনা আবহে ভার্চুয়াল সমাবর্তনও করছে না যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। তাহলে কি রাজ্যপাল বিতর্ক এড়াতেই এমন সিদ্ধান্ত! প্রশ্নও উঠছে শিক্ষা মহলে।
কোভিড পরিস্থিতিতে ২৪ ডিসেম্বর যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে ভার্চুয়াল সমাবর্তন অনুষ্ঠানের কথা ছিল। তবে সেই সিদ্ধান্ত পরিবর্তন হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ সিদ্ধান্ত নিয়ামক এক্সিকিউটিভ কাউন্সিল জানিয়েছে, এবার করোনাকালে ভার্চুয়াল সমাবর্তনও হবে না। ছাত্রছাত্রীদের ডাকযোগে শংসাপত্র পাঠানো তাঁদের বাড়িতে। এবছর দেশের বেশিরভাগ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ভার্চুয়াল সমাবর্তন করেছে। এগুলির মধ্যে কয়েকটিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে ইতিমধ্যেই বক্তব্য রাখতে দেখা গিয়েছে।
এদিকে সংবিধান অনুযায়ী, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য পদে রয়েছেন রাজ্যের রাজ্যপাল জয়দীপ ধনকর।গত বছর এই আচার্যকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছু সংখ্যক কর্মী ও পড়ুয়ারা সমাবর্তন অনুষ্ঠানে যোগ দিতে বাধা দেন। এমনকি রাজ্যের শাসক দলও রাজ্যপালকে বিজেপির অনুগত বলে মনে করেন।
গত বছরের বিক্ষোভের কথা মাথায় রেখে এবছর অতিমারীর মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভার্চুয়াল সমাবর্তনে রাজ্যপালকে ডাকা হবে কিনা, তা নিয়ে বিতর্ক শুরু হয় আগেই। আবার ২০২১ এর বিধানসভার নির্বাচনও রয়েছে। একুশের নির্বাচনকে ঘিরে ইতিমধ্যেই তৃণমূল- বিজেপির দ্বন্দ্বতে উত্তপ্ত বাংলা। তাই এই মুহুর্তে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভার্চুয়াল সমাবর্তনে রাজ্যপালকে কেন্দ্র করে বিক্ষোভ এড়াতেই সমাবর্তন বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত বলে মনে করছেন পড়ুয়ারা।

এজন্য ছাত্র ছাত্রীদের নাম, ঠিকানা সহ যাবতীয় নথি,বকেয়া ফি ইতিমধ্যেই অনলাইনে পাঠাতে বলা হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে। এর ফলে ছাত্রছাত্রীদের বাড়িতেই সমাবর্তনের বিশেষ পোশাক, খাবারের প্যাকেট ও শংসাপত্রের হার্ড কপি পাঠানো হবে। এক্ষেত্রে স্নাতক-স্নাতকোত্তর এবং পিএইচডি উত্তীর্ণ ছাত্র-ছাত্রীদের থেকে এবার কোনও ফি নেওয়া হয়নি বলেও জানানো হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফে।