নিউজপোল ডেস্কঃ কিছুদিন আগে জিতেন্দ্র তিওয়ারির রাজনৈতিক অবস্থান নিয়ে প্রবল জল্পনা-কল্পনা চলছিল বঙ্গ রাজনীতিতে। একদল ধরে নিয়েছিল যে এবার জিতেন্দ্র তিওয়ারি দলবদলের স্রোতে গা ভাসাবে। কিন্তু তেমনটা হয়নি। দীর্ঘদিন ধরে তৃণমূলে কোন পদ না পেয়েও দলকে ছাড়েনি সে। এবার প্রায় দু’মাস পর তৃণমূল কংগ্রেসের গুরুত্বপূর্ণ পদ ফিরে পেলেন আসানসোলের পুরো নিগমের প্রাক্তন মেয়র তথা পাণ্ডবেশ্বর এর বিধায়ক জিতেন্দ্র তিওয়ারি। দলের জাতীয় মুখপাত্রের দায়িত্ব তুলে দেওয়া হল তাঁর হাতে।

তৃণমূল সূত্রের খবর, বিধানসভা ভোটের আগে জিতেন্দ্রর বাগ্মিতাকে কাজে লাগাতে চাইছে ঘাসফুল শিবির। বিশেষত একটা সময় আইনজীবী ছিলেন জিতেন্দ্র। তাঁর সেই কথা বলার দক্ষতাকে ব্যবহার করে বিজেপির মোকাবিলা করতেই ‘ভুল’ মকুব করে দেওয়া হয়েছে। সেই দায়িত্ব পাওয়ার পর আসানসোলের প্রাক্তন মেয়র জানান, তাঁর উপর ভরসা রেখেছে তৃণমূল। তাতে আপ্লুত তিনি। তিনি আরও বলেন, “আমি কৃতজ্ঞ মুখ্যমন্ত্রী তথা দলনেত্রীর কাছে। এতকিছুর পর আমার উপর ভরসা রেখে তিনি যে নতুন দায়িত্ব দিয়েছে তাতে আমি খুবই খুশি। আমি আবার নতুন দায়িত্ব অবশ্যই পালন করে আমার যোগ্যতাকে প্রমাণ করার চেষ্টা করব। প্রতিপক্ষ যারা থাকেন তারা নানা ধরনের মিথ্যা অভিযোগ নানা ভাবে তুলে ধরে জল্পনা-কল্পনা সৃষ্টি করে। এবার আমি দলের সৈনিক হয়ে সেই সমস্ত সমস্যা থেকে দলকে রক্ষা রাখবো।”

প্রসঙ্গত, বেশ কিছুদিন ধরেই বঙ্গ রাজনীতিতে চর্চার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছেন পাণ্ডবেশ্বর এর বিধায়ক জিতেন্দ্র তিওয়ারি। কিছুদিন আগে মনোমালিন্যের কারণে তৃণমূল ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। আর তখনই তিনি তৃণমূলের সঙ্গে সম্পর্ক ছেদ করতে আসানসোল পুরোনিগমের প্রশাসক জিতেন্দ্র তিওয়ারি পদত্যাগ করেছিলেন পুরো প্রশাসক এবং তৃণমূলের পশ্চিম বর্ধমান জেলা সভাপতির পদ থেকে। তবে সেই মনোমালিন্য ২৪ ঘন্টার মধ্যেই মিটে যায়। কিন্তু সমস্যা মিটে গিয়ে তিনি তৃণমূলে যোগদান করলেও দলবদল আবহে তাকে হয়তো বিশ্বাস করতে পারেনি ঘাসফুল শিবির। তাই দীর্ঘদিন তাকে কোনরকম পদে বসাতে রাজি হয়নি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে অবশেষে জিতেন্দ্র তিওয়ারির ওপরে বিরাট আস্থা দেখাল দল।