সারা বিশ্বজুড়ে দাপিয়ে ব্যবসা করলেও এবার অ্যামাজনের মতো বহুজাতিক সংস্থার বিরুদ্ধে উঠে এল বর্ণবৈষম্যের মত গুরুতর অভিযোগ। সংস্থার একজন মহিলা ম্যানেজার বর্ণবৈষম্যের মতো গুরুতর বিষয়ের অভিযোগে এবার মামলা দায়ের করল অ্যামাজনের বিরুদ্ধে। তাঁর অভিযোগ গায়ের রং কালো যাঁদের তাদেরকে নিম্ন পদে নিয়োগ করা হয়। সংস্থার বিভিন্ন কাজে কৃষাঙ্গ যাঁরা তাদেরকে বিভিন্ন কাজে ধীরে ধীরে পদোন্নতি ঘটানো হয়। কিন্তু শ্বেতাঙ্গদের সংস্থার কাজে অনেক বেশী প্রাধান্য দেওয়া হয় এবং দ্রুত পদোন্নতিও দেওয়া হয়। কৃষাঙ্গ হওয়ার কারণেই তাঁকেও হেনস্থা করা হয়েছিল।

যদিও সংস্থার প্রাক্তন সিইও জেফ বেজোস সবসময়ই দাবি করতেন যে বর্ণবৈষম্যের বিরুদ্ধে লড়াই করেন তাঁরা। অ্যামাজনের মতো সংস্থায় কোনওরকম বর্ণবিদ্বেষকমূলক কাজ হয় না বা এই ধরণের কোনও কাজকে তাঁরা সমর্থন করে না। কিন্তু বাস্তবে দেখা যাচ্ছে পুরো উল্টো চিত্র। ওই মহিলা ম্যানেজারের আরও অভিযোগ সংস্থার ভিতরে অনেক সময়ই তাঁকে পুরুষ সহকর্মীদের থেকে যৌনহেনস্থার মুখোমুখি পড়তে হয়। অ্যামাজনের বিরুদ্ধে ওঠা এই অভিযোগ নিয়ে ইতিমধ্যেই সারা বিশ্বে আলোড়ন পড়ে গেছে। নানা মহলে সমালোচনাও হচ্ছে অ্যামাজনের অভ্যন্তরীণ এই বিষয় গুলি নিয়ে। যদিও অ্যামাজনের তরফে বর্ণবৈষম্যের অভিযোগ কিংবা যৌনহেনস্থার অভিযোগ নিয়ে সংস্থার তরফে কিছু বলা হয়নি। বরং সংস্থার তরফে বলা হয়েছে কর্মীদের পদোন্নতি করা হয়েছে প্রত্যেকের কাজের পারফরম্যান্সের উপর ভিত্তি করে।