তমাল পাল:‌— সকাল থেকে গোটা কলকাতায় জনতার ঢল নেমেছিল ব্রিগেডের উদ্দেশে। তারই মধ্যে এবার ব্রিগেডগামী জনতার সঙ্গে পা মেলালেন পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল কংগ্রেসের লিগ্যাল সেলের সদস্যরাও। তাঁদের দাবি, ইতিহাসে এই প্রথমবার কলকাতা হাইকোর্টের পাঁচহাজার আইনজীবী এবং সারা পশ্চিমবঙ্গ ও গোটা দেশের আইনজীবীরা এরকম কোনও রাজনৈতিক সমাবেশে অংশ নিলেন। পশ্চিমবঙ্গ তৃণমূল কংগেস লিগ্যাল সেলের চেয়ারম্যান ভাস্করপ্রসাদ বৈশ্যের কথায়, ‘‌এই সমাবেশে আমাদের রাজ্যের প্রতিটি জেলার লিগ্যাল সেলের সদস্যরাই এসেছেন। কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে আমাদের জন্য যে প্রকল্পগুলো ঘোষণা করা হয়েছিল, তার সম্পূর্ণ টাকা দেওয়া হচ্ছেন না। এই সমস্যায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এগিয়ে এসেছেন। তিনি বলেছেন, কেন্দ্র যদি সাহায্য নাও করে, উনিই আমাদের সাহায্য করবেন। ওঁর ওপরে আমাদের ভরসা আছে। আজ ব্রিগেডে সমাবেশ বলে আমরা কলকাতা হাইকোর্টে জমায়েত করলাম। যদি এটা নয়াদিল্লিতে হতো, তাহলে আমরা সুপ্রিম কোর্টে জমায়েত করতাম।’‌ জলপাইগুড়ি, শিলিগুড়ি, মালদহ, উত্তর দিনাজপুর–সহ গোটা রাজ্য থেকে আইনজীবীরা এসেছেন। সোয়া দশটা নাগাদ তাঁরা জমায়েত করে সমাবেশে যোগ দেন। সুরেন্দ্রনাথ কলেজ সহ বিভিন্ন ল কলেজের ছাত্র–শিক্ষকরাও এই সমাবেশে হাজির ছিলেন।
বিশিষ্ট আইনজীবী রাকেশ সিং বলেন, ‘‌আজকের দিনটার ঐতিহাসিক। কারণ এর আগে কখনও আইনজীবীরা এভাবে পথে নামেননি। আমাদের একটাই স্লোগান। মোদি হঠাও দেশ বাঁচাও। এই সাম্প্রদায়িক শক্তিকে আমরা সমূলে উৎখাত করতে চাইছি। মিটিং এবং মিছিল করা নাগরিকের গণতান্ত্রিক অধিকার। আমরা গণতান্ত্রিক উপায়েই আন্দোলন করছি। আজকের এই সমাবেশের দিকে গোটা দেশের নজর রয়েছে।’‌ সকাল থেকে গোটা কলকাতায় জনতার ঢল নেমেছিল ব্রিগেডের উদ্দেশে। তারই মধ্যে এবার ব্রিগেডগামী জনতার সঙ্গে পা মেলালেন পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল কংগ্রেসের লিগ্যাল সেলের সদস্যরাও। তাঁদের দাবি, ইতিহাসে এই প্রথমবার কলকাতা হাইকোর্টের পাঁচহাজার আইনজীবী এবং সারা পশ্চিমবঙ্গ ও গোটা দেশের আইনজীবীরা এরকম কোনও রাজনৈতিক সমাবেশে অংশ নিলেন। পশ্চিমবঙ্গ তৃণমূল কংগেস লিগ্যাল সেলের চেয়ারম্যান ভাস্করপ্রসাদ বৈশ্যের কথায়, ‘‌এই সমাবেশে আমাদের রাজ্যের প্রতিটি জেলার লিগ্যাল সেলের সদস্যরাই এসেছেন। কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে আমাদের জন্য যে প্রকল্পগুলো ঘোষণা করা হয়েছিল, তার সম্পূর্ণ টাকা দেওয়া হচ্ছেন না। এই সমস্যায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এগিয়ে এসেছেন। তিনি বলেছেন, কেন্দ্র যদি সাহায্য নাও করে, উনিই আমাদের সাহায্য করবেন। ওঁর ওপরে আমাদের ভরসা আছে। আজ ব্রিগেডে সমাবেশ বলে আমরা কলকাতা হাইকোর্টে জমায়েত করলাম। যদি এটা নয়াদিল্লিতে হতো, তাহলে আমরা সুপ্রিম কোর্টে জমায়েত করতাম।’

জলপাইগুড়ি, শিলিগুড়ি, মালদহ, উত্তর দিনাজপুর–সহ গোটা রাজ্য থেকে আইনজীবীরা এসেছেন। সোয়া দশটা নাগাদ তাঁরা জমায়েত করে সমাবেশে যোগ দেন। সুরেন্দ্রনাথ কলেজ সহ বিভিন্ন ল কলেজের ছাত্র–শিক্ষকরাও এই সমাবেশে হাজির ছিলেন।
বিশিষ্ট আইনজীবী রাকেশ সিং বলেন, ‘‌আজকের দিনটার ঐতিহাসিক। কারণ এর আগে কখনও আইনজীবীরা এভাবে পথে নামেননি। আমাদের একটাই স্লোগান। মোদি হঠাও দেশ বাঁচাও। এই সাম্প্রদায়িক শক্তিকে আমরা সমূলে উৎখাত করতে চাইছি। মিটিং এবং মিছিল করা নাগরিকের গণতান্ত্রিক অধিকার। আমরা গণতান্ত্রিক উপায়েই আন্দোলন করছি। আজকের এই সমাবেশের দিকে গোটা দেশের নজর রয়েছে।’‌