নিউজপোল ডেস্ক: প্রেমের দৃশ্য অভিনীত হবে। নায়কের চরিত্র দেওয়া হল শম্ভু মিত্রকে। প্রেমিকা রাস্তা দিয়ে আসবেন। সেখানেই ধাক্কা হবে প্রেমিকের সঙ্গে। সেখান থেকেই আলাপ। হঠাৎ নায়ক অর্থাৎ শম্ভুর মনে হয়েছিল, যে চরিত্রটিতে তিনি অভিনয় করবেন, তার পেশা কী? তখন তিনি মজা করে স্কুলের পড়ুয়ারাও যে প্রেমের ক্ষেত্রে পিছিয়ে নেই, সে কথা বলেছিলেন। স্কুল বা কলেজের পড়ুয়াদের ক্ষেত্রে ইদানীং এই প্রবণতা বেড়েছে অনেকটাই। আপাতভাবে এর মধ্যে কোনও দোষ দেখা না হলেও গবেষকরা বলছেন অন্য কথা। জার্নাল অফ স্কুল হেল্‌থ-এ প্রকাশিত একটি গবেষণায় বিজ্ঞানীরা দাবি করেছেন, স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে যাঁদের সঙ্গী বা সঙ্গিনী নেই, তাঁরা কার্যক্ষেত্রে অনেকটাই এগিয়ে। এমনকী, তাঁরা অবসাদেও কম ভোগেন বলে দাবি বিজ্ঞানীদের।

মার্কিন মুলুকের স্কুল-কলেজের পড়ুয়াদের ওপর চালানো হয়েছিল এই গবেষণা। ব্রুক ডগলাস এবং তাঁর দলবল ইউনিভার্সিটি অফ জর্জিয়ার ৬০০ জন শিক্ষার্থীর ওপর সমীক্ষা চালিয়েই এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন। সমীক্ষার জন্য অংশগ্রহণকারীদের বেশ কিছু প্রশ্ন করেন গবেষকরা। পাশাপাশি ওই একই বিষয়ে শিক্ষকদের কাছ থেকে সেই সব পড়ুয়াদের সম্পর্কে মতামতও নিয়েছেন তাঁরা। তারপর সেই তথ্য তুল্যমূল্য বিচার করে বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, যে সমস্ত শিক্ষার্থীদের প্রেমিক বা প্রেমিকা নেই, তাঁরা অনেক বেশি দক্ষ। পড়াশোনায় ভাল ফলও করেন সেই সমস্ত ছেলেমেয়েরা। অন্যদিকে যাঁরা সম্পর্কে রয়েছেন, তাঁদের মধ্যে সাধারণ বিষয় নিয়েও মানসিক অবসাদ লক্ষ্য করা যায়। এর কারণ হিসেবে গবেষকরা স্কুলপড়ুয়াদের অপরিণত চিন্তাভাবনার কথা জানিয়েছেন। মূলত ছাত্রাবস্থায় প্রেম সম্পর্কে তাঁদের সম্যক ধারণার অভাবের জন্যই সম্পর্ক তাঁদের ওপর কুপ্রভাব ফেলে। যার ফলে পড়াশোনারও ক্ষতি করেন তাঁরা, জানিয়েছেন ডগলাস এবং তাঁর সহকর্মীরা।