নিউজপোল ডেস্ক: মুখভর্তি দাড়ি রাখা ট্রেন্ড হলেও কর্মক্ষেত্রে বিশেষ নিষেধাজ্ঞার কারণে ইচ্ছে থাকলেও উপায় নেই অনেকেরই। কিন্তু এর বাইরে ব্যক্তিগত জীবন আছে আপনার। তাছাড়া সম্প্রতি গবেষকরা জানিয়েছেন, মুখভর্তি দাড়ি রাখলে সুস্থ থাকতে পারবেন আপনি। তাঁদের দাবি, দাড়ি কামানো পুরুষদের মুখেই রোগজীবাণু বেশি বাসা বাঁধে। সুতরাং, শুধুমাত্র ট্রেন্ড নয়, নিজেকে সুস্থ রাখতে গেলেও দাড়ি রাখা প্রয়োজন।
একগাল দাড়ি রাখা এখন পুরুষদের ট্রেন্ড। এই সূত্রে বলিউড তারকাদের অনুসরণ করেন অনেকেই। শুধুমাত্র সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলা নয়, দাড়ি হয়ে উঠতে পারে ব্যাকটেরিয়া-প্রতিরোধী। আমেরিকার ব্রিগহাম অ্যান্ড উইমেনস হাসপাতালের একটি সমীক্ষায় প্রাপ্ত তথ্য প্রকাশিত হয়েছে জার্নাল অফ হসপিটাল ইনফেকশনে। সেখানে বলা হয়েছে, দাড়ি কেটে ফেললে রোগ-জীবাণুর হাত থেকে রেহাই পাওয়া হয়ে ওঠে মুশকিল। এই সমীক্ষায় অংশ নিয়েছিলেন ৪০০ জন ব্যক্তি। তাঁদের মধ্যে কিছুজনের দাড়ি ছিল এবং কিছুজনের ছিল না। এরপর বিজ্ঞানীরা লক্ষ্য করেন, যাঁদের মুখে দাড়ি ছিল, তাঁদের ত্বকে কোনও সমস্যা দেখা দেয়নি। অন্যদিকে যাঁদের মুখে দাড়ি ছিল না, তাঁদের মুখের চামড়ায় স্টাফাইলোকোকাস নামক এক ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া পাওয়া গেছে। এই ব্যাকটেরিয়ার প্রভাবে শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা দেখা যায় বলে জানিয়েছেন গবেষকরা।
বিজ্ঞানীদের মত, দাড়ি কাটার পরে ত্বকে সহজেই বাসা বাঁধে ব্যাকটেরিয়া। লন্ডন ইউনিভার্সিটির গবেষক ড. অ্যাডাম রবার্টও এই কথা স্বীকার করে বলেন, ‘দাড়িতে এমন কিছু উপাদান থাকে, যা ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া ধ্বংসে সাহায্য করে।’ সুতরাং, দাড়ি রাখার অর্থ শুধুমাত্র ট্রেন্ড অনুসরণ করাই নয়, বরং নিজেকে সুস্থ রাখার চাবিকাঠিও।