নিউজপোল ডেস্ক: এ যেন যাকে বলে রাজযোটক। একে সপ্তাহ শেষের ছুটি, তার ওপর নাগাড়ে বৃষ্টি। আয়েশ করে বিছানায় শুয়ে থাকার এর চেয়ে সেরা সুযোগ হতে পারে না। ব্যাপারটা আরও জমে উঠবে যদি একটু খিচুড়ির বন্দোবস্ত করা যায়। বৃষ্টির সঙ্গে খিচুড়ির যেন এক চিরকালীন যোগাযোগ। কিন্তু কেন? বৃষ্টি হলেই কেন বাঙালির খিচুড়ির জন্য মন কেমন করে? বিরিয়ানিও তো হতে পারত।

কারণ একটা নয়। অনেকগুলো।

বৃষ্টির দিনে মানুষের মধ্যে একটু হলেও আলস্য কাজ করে। রান্নাবান্না তাড়াতাড়ি সেরে ফেলতে বাড়ির মা-কাকিমারা ডালে-চালে বসিয়ে দেন। সঙ্গে একটু ভাজা হলেই যথেষ্ট। গরম খিচুড়িতে সামান্য ঘি ঢেলে নিলে তার স্বাদ ‘স্বর্গীয়’ হয়ে ওঠে। বাউল-ফকির সম্প্রদায়ের মধ্যে খিচুড়ির প্রচলন ছিল সবচেয়ে বেশি। সারাদিন গান গেয়ে মাধুকরী করতে গিয়ে বেশিরভাগ বাড়িতেই জুটত চাল, কিংবা ডাল। কেউ আবার একটা আলুও দিতেন। ফটাফট রান্না সেরে ফেলতে ডাল, চাল, আলু একসঙ্গে উনুনে চাপিয়ে দিতেন বাউলরা। এ তো গেল সুবিধা-অসুবিধার ব্যাপার। বৃষ্টির দিনে খিচুড়ি পাতে পাওয়ার ইচ্ছের সঙ্গে কোনও মনোস্তাত্ত্বিক বিষয় আছে কি?

মনস্তত্ত্ববিদরা বলছেন, এর সঙ্গে শারীরবৃত্তীয় কোনও যোগাযোগ নেই। সাইকোলজিস্ট উষসী বন্দ্যোপাধ্যায় বলছেন, যোগাযোগ আসলে সামাজিক। জন্ম থেকেই বাঙালি দেখছে বৃষ্টির দিনে বাড়িতে খিচুড়ি রান্না হচ্ছে। সাহিত্য, সিনেমা, থিয়েটারেও বিষয়টি নিয়ে চর্চা কম হয় না। সমস্ত মিলেমিশে প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে চলছে এই রেওয়াজ।