নিউজপোল ডেস্কঃ আজ, শুক্রবার দিল্লিতে সাংবাদিক বৈঠক করে পাঁচ রাজ্যের নির্বাচনের নির্ঘণ্ট প্রকাশ করেছে নির্বাচন কমিশন। কমিশন মতে পশ্চিমবঙ্গে ভোট হবে আট দফায়। অন্যদিকে অসমে ভোট হবে তিন দফায় এবং বাকি তিন রাজ্যে নির্বাচন হবে একটি দফাতেই। কমিশনের এমন সিদ্ধান্ততে বেজায় অসন্তুষ্ট বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নির্ঘণ্ট ঘোষণার পরেই সাংবাদিকদের সামনে জানান বিজেপিকে সুবিধা দিতেই কি বাংলায় আট দফায় ভোট? পাশাপাশি এই সিদ্ধান্তের পেছনে যে বিজেপির হাত রয়েছে সে অভিযোগও করেন মুখ্যমন্ত্রী।

এদিন কালীঘাটের বাড়িতে মহাযজ্ঞের আয়োজন করেছিলেন দলনেত্রী। আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি সারতে জরুরি বৈঠকও ডাকেন তিনি। মিটিং শেষেই সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে কমিশনের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন তৃণমূল সুপ্রিমো। তাঁর কথায়, “কাকে সুবিধা করে দেওয়ার জন্য ৮ দফায় নির্বাচন? নির্বাচন কমিশন রাজ্যকে সুবিচার না দিলে কোথায় যাবে জনগণ? বিজেপির নির্দেশেই এটা করা হয়েছে।” শুধু তাই নয় জেলাগুলিকে কয়েকটি পার্টে ভাগ করা ঘিরেও অসন্তোষ প্রকাশ করেন মমতা। তিনি সরাসরি দাবি করেন বাংলায় আট দফায় ভোটগ্রহণের নেপথ্যে বিজেপির হাত রয়েছে। বিজেপি ক্ষমতার অপব্যবহার করছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি। জেলাগুলিকে বিভিন্ন পার্টে ভাগ করা নিয়ে তিনি কটাক্ষ করে বলেন এরা আবার বিএ পার্ট ওয়ান পার্ট টু শেখাচ্ছে। দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলায় যেহেতু আমাদের জোর বেশি তাই তিন দিনে ভোটগ্রহণ করছে। এগুলো কি নরেন্দ্র মোদী আর অমিত শাহের কথায় হয়েছে?

এরপরই মোদী-শাহকে মমতার চ্যালেঞ্জ, “এখানে ৩২ দিনের খেলা খেলবেন? আমাদের যায় আসে না। হারিয়ে ভূত করে দেব। আপনারা জেলাকে ভাঙছেন। ভাই-ভাইকে ভাঙছেন। হিন্দু-মুসলিমকে ভাঙছেন। আপনারা বাঙালি-রাজবংশী ভাঙছেন। আপনারা টোটাল দেশটাকে ভাঙছেন। বাংলার নিজের মেয়ে মমতা ব্যানার্জি বলছি, বাংলাকে আমি ভালো চিনি। জেলা থেকে বিধানসভা কেন্দ্র সব চিনি। মমতার হুঙ্কার, “এর জবাব বাংলার মানুষ দেবে। বহিরাগত গুন্ডারা বাংলা শাসন করবে না। বাংলার মানুষ বাংলা শাসন করবে”। বাংলার ঘরের মা বোনেরা তৈরি বাংলার ঘরের মেয়েকেই জেতাতে।” তিনি বলেন, যত বাইরের নেতা নিয়ে আসতে চান, নিয়ে আসুন তৈরি আছি। আমরা বাংলার ঘরের লোক।

এদিন মমতা প্রশ্ন তলেন করোনা পরিস্থিতিতে বিহারে ২৪০টা আসনে তিন দফায় ভোটগ্রহণ হয়েছে। আর আজ ঘোষণা হয়েছে অসমের ১২৬ আসনের ভোটগ্রহণ হবে তিন দফায়। তামিলনাড়ুতে ২৩৪টি আসনে একদিনে ভোটগ্রহণ হচ্ছে। কেরলে সিপিএমের সরকার আছে এক দফায় ভোটগ্রহণ হচ্ছে। বাংলায় ২৯৪টা আসন। এখানে আট দফায় ভোটগ্রহণ কেন? কাকে সুবিধা করে দেওয়ার জন্য। একটু তো যুক্তিগ্রাহ্যতা থাকবে নির্বাচন কমিশনের। কমিশনকে মমতার আর্জি, “আমি নির্বাচন কমিশনকে অনুরোধ করবো, পশ্চিমবঙ্গকে নিজের রাজ্য মনে করবেন। বিজেপির চোখে পশ্চিমবঙ্গকে দেখবেন না”। এদিকে পর্যবেক্ষক নিয়োগ নিয়েও আপত্তি জানিয়েছেন তৃণমূলনেত্রী। বলেন, “একই লোককে পর্যবেক্ষক করে পাঠানো হয়েছে। ২০১৯ সালে বিবেক দুবে কী নাটক করেছিলেন তা আমরা সবাই জানি”।