শিকাগোয় বন্দুকবাজের হানা। চারঘণ্টা ধরে শহরের বিভিন্ন এলাকায় হামলা চালিয়ে তিনজনকে খতম করে ওই দুষ্কৃতী। গুরুতর জখম হন চারজন। শেষে পুলিশের গুলিতে মৃত্যু হয় তার। হামলার কারণ এখনও অজানা।

স্থানীয় সময় শনিবার দুপুর থেকে শহরের বিভিন্ন প্রান্তে তাণ্ডব শুরু করে বন্দুকবাজ। আচমকাই শহরের একাধিক এলাকায় গুলি চালায় সে। বিভিন্ন বয়স, পেশার মানুষজনকে আক্রমণ করে। হামলাকারীর মানসিক  অবস্থা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে পুলিশ। প্রথমে শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে হামলায় চালায় বন্দুকবাজ। তার ছোঁড়া গুলিতে এক ছাত্রের মৃত্যু হয়। পুলিশ সূত্রে খবর, পার্কিং লটে নিজের গাড়িতে বসেছিলেন ওই ছাত্র। তাকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় বন্দুকবাজ। ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

এরপর একটি অ্যাপার্টমেন্টে ঢুকে পড়ে হামলাকারী। সেখানকার নিরাপত্তারক্ষীকে জখম করে নিশানা করে এক বৃদ্ধাকে। তাঁর ঘাড়ে গুলি লেগেছে। গুরুতর জখম অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি তিনি। হাসপাতালে আনার পর নিরাপত্তাররক্ষীরও মৃত্যু হয়। এরপর ঘটনাস্থল থেকে এক পরিচিত ব্যক্তির গাড়ি চুরি করে চম্পট দেয় হামলাকারী। তখন থামেনি তার হত্যালীলা। পরে এক নাবালিকা, রেস্তোরাঁর কর্মীকে নিশানা করে গুলি ছোড়ে। পরে গাড়ি নিয়ে চম্পট দেওয়ার চেষ্টা করে সে। গাড়ি নিয়ে পৌঁছে যায় শিকাগো সীমান্তে।

এদিকে একের পর এক হামলার খবর পেয়ে সতর্ক হয়ে যায় শিকাগো পুলিশও। শিকাগো সীমান্তে পার্কিং লটে পুলিশের সঙ্গে গুলি বিনিময়ে তার মৃত্যু হয়। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, বন্দুকবাজের নাম নাইটেঙ্গেল। কিন্তু কেন সে হামলা চালিয়েছে, সেই কারণ এখনও অজানা। তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।