নিউজপোল ডেস্ক:‌ লাস্যময়ীরা স্বল্পবাসে হেঁটে বেড়াবে। মৃদু হেসে ঠোঁট চেপে প্রশ্নের উত্তর দবে, এটাই যেন দস্তুর ছিল। সৌন্দর্য প্রতিযোগিতার মঞ্চে এত সোজাসাপ্টা উত্তর এর আগে কেউ দিয়েছে নাকি সন্দেহ। তাও আবার দেশের প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে। তিনি হয়তো প্রতিযোগিতা জিততে পারেননি, কিন্তু আসমুদ্রহিমাচলের মন জিতেছেন। তিনি ভিকুওনুয়ো সাচু। মিস কোহিমা সৌন্দর্য প্রতিযোগিতায় তৃতীয় স্থানাধিকারী।
১৮ বছরের সাচুকে বিচারকরা প্রশ্ন করেন, প্রধানমন্ত্রী মোদী আড্ডা দেওয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানালে তাঁকে কী বলবেন?‌ সাচুর সাফ জবাব, ‘‌প্রধানমন্ত্রী আমন্ত্রণ জানালে বলব গরুর থেকে দেশের মহিলাদের উন্নতিতে নজর দিন’‌। সোশ্যাল সাইটে ভিডিওটি ভাইরাল হয়ে যায়। তার পরেই দারুণ জনপ্রিয় হন সাচু। ৫ অক্টোবর নাগাল্যান্ডের রাজধানী কোহিমায় আয়োজিত হয়েছিল এই ‘‌মিস কোহিমা’‌ প্রতিযোগিতা। প্রথম হন ২২ বছরের খ্রিয়েনিও লিয়েজিয়েৎসু। দ্বিতীয় হন ১৯ বছরের খ্রিয়েলিয়েভিয়েনুয়ো সুওহু। তৃতীয় হন সাচু।
দেশের বিভিন্ন রাজ্যে গোহত্যা নিষিদ্ধ করেছে বিজেপি সরকার। গোহত্যা করে ধরা পড়লে সাত বছর পর্যন্ত জেল হতে পারে। গরুর মাংস খাওয়াও কোথাও কোথাও নিষিদ্ধ। গোহত্যার অভিযোগে উত্তর, মধ্য ভারতে বহু মানুষ গণপিটুনির শিকার হয়েছেন। মারা গেছেন দাদরির আখলাক, ঝাড়খণ্ডের তবরেজ সহ অনেকে। কিন্তু উত্তর–পূর্ব ভারতের মানুষ এই সিদ্ধান্ত মেনে নিতে পারেনি। কারণ দেশেই এই অংশে গোমাংস দারুণ জনপ্রিয়। মণিপুরের বিজেপি মুখ্যমন্ত্রী পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার জন্য ২০১৭ সালে বলেন, বেআইনি গোহত্যা বন্ধ এবং সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্যের কথা ভেবে সরকার গোহত্যা নিয়ন্ত্রণ করছে। তাতে যদিও উত্তর–পূর্ব ভারতের বাসিন্দাদের ক্ষোভ যায়নি। সেই ক্ষোভই ফুটে উঠেছে সাচুর গলায়।