টোকিও গেমসের টিকিট পেয়ে যাবেন, ভাবেননি প্রণতি নায়েক। গত বার এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে ভল্টে ব্রোঞ্জ পেয়েছিলেন বাংলার জিমন্যাস্ট। গত বারের পারফরম্যান্সের ভিত্তিতেই অলিম্পিকে নামার স্বপ্নপূরণ হল তাঁর।

খবর পেয়ে উচ্ছ্বাসে ভেসে গিয়েছেন প্রণতি। বলেছেন, ‘গত বার বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে অলিম্পিকের যোগ্যতা মান ছুঁতে না পারায় খারাপই লেগেছিল। তার পর থেকে তো করোনায় সব কিছুই একের পর এক বাতিল হয়ে গিয়েছে। তার পরও যে অলিম্পিকে নামার স্বপ্নপূরণ হবে, কখনও ভাবিনি।’

সাইয়ের প্রাক্তন কোচ মিনারা বেগমের হাত ধরেই উত্থান হয়েছিল প্রণতির। ছাত্রী অলিম্পিকে নামার ছাড়পত্র পেয়েছেন শুনে মনিরা বললেন, ‘অলিম্পিকের যোগ্যতা অর্জন করার জন্য প্রণতি তৈরি হচ্ছিল। কিন্তু সব ইভেন্টই একের পর এক বাতিল হয়ে গিয়েছে। তার পরও যে ওর স্বপ্নপূরণ হয়েছে, এর থেকে ভালো আর কী হতে পারে!’